ই কমার্স শুরু করার জন্য কয়েকটি প্রাসঙ্গিক কথা

892

ই কমার্স শুরুর জন্য কয়েকটি প্রাসঙ্গিক কথা
জাহাঙ্গীর আলম শোভন

ইন্টারভিউবোর্ডে চাকুরীপ্রার্থীকে প্রশ্ন করা হলো, ‘আপনিযে বেবী কেয়ার সেন্টারে চাকুরী করতে এসেছেন, এ বিষয়ে কি আপনার পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে’? প্রাথীর উত্তর- ‘আছে স্যার, কমপক্ষে ৬ বছরের অভিজ্ঞতা’। নিয়োগ কর্তার প্রশ্ন- ‘কোথায়? কোনফার্মে আপনি ৬ বছর কাজ করেছেন’?। উত্তর- ‘ফার্মে নয় স্যার, বাসায়’। নিয়োগ কর্তা আবার জিজ্ঞেস করলেন, ‘বাসায় মানে আপনি কি নিজেই একসময় ডে কেয়ার সেন্টার দিয়েছিলেন নাকি’।  প্রার্থীর সরল উত্তর-  ‘তা নয় স্যার, আমিতো নিজেই ৬ বছর বয়স পর্যন্ত শিশু ছিলাম’’। এবং সাধারণত এ কাজে হুলুস্থুল অভিজ্ঞতা দরকার হয়না। দরকার হয় শিশুসূলভ মানসিকতা। আর ই কমার্সের ক্ষেত্রে তো অভিজ্ঞতার সুযোগ খুব সীমিত তাই এখানে প্রয়োজন ভালো করে ব্যবসায়টাকে জানা শোনা এবং বোঝা।

 

creative-advertisements-57

আপনারা যারা ই কমার্স নিয়ে নতুন এবং অনভিজ্ঞ বলে নিজেকে ভাবছেন আপনারা আসলে তা নন, আপনারা প্রত্যেকে ব্যবসায়ী হিসেবে নিয়মিত এবং মোটামোটি অভিজ্ঞ। প্রতিদিন আপনারা একটা জিনিস অসংখ্যবার বিক্রি করে থাকেন। প্রতিটি মানুষই তাই করে। সেটা কি আমাকে একটু বলুন?  প্রয়োজনে এক মিনিট চোখবন্ধ করে হেডলাইনের মানে নিজের জ্ঞানবুদ্ধির সাহায্য নিন।

হ্যাঁ টাকা। প্রতিদিন আপনি আমি কিছু না কিছু টাকা বেচে বেড়াই। এখানে আসার সময়ও আপনারা রিক্সা বা সিএনজি ড্রাইভারের কাছে সেবার বিনিময়ে টাকা বেচেছেন।  প্রতিদিন বাসে, গাড়িতে আমর সবাই তাই করি। সকালে বাজারে গিয়ে আমরা টাকা বেচি। হাইজ টিউটরের কাছে বেচি, সবজি ওয়ালার কাছে বেচি, কাজের লোকের কাছে বেচি। সেই টাকা আমরা আবার কিনে আনি। কোেেত্থকে আনি? কেউ নেয়াগকর্তার কাছ থেকে আনি, কেউবা অন্য কোন উৎস থেকে।

এখন এইযে আমরা নিয়মিত টাকা বেচাকেনার ব্যবসায় করি সেটা কি আমাদের লাভ হয়। আমরা কিভাবে বুঝবো যে সেটা লাভজনক। অথবা এখানেতো লাভ লোকসানের ব্যাপার নেই। আমি বলবো এখানেও লাভ লোকসানের ব্যাপার আছে। এবং আমরা প্রতিদিন বেশীরভাগ ক্ষেত্রে লাভ করছি।

আপনি যখন ১টা টুথপেস্ট ৩৫ টাকা দিয়ে ক্রয় করেন তখন কি আপনার মনে হয় আপনার লোকসান হয়েছে? আমার মনে হয় না। খুব কম সময়ে আমাদের এরকম মনে হয়। বিশেষ করে ঈদ বাজেটে যখন খরচের চেয়ে দ্বিগুন টাকা ছুটে যায় তখন হয়তো মনে হয় লোকসান হয়েছে। স্বাভাবিক বেশীরভাগ সময় আমরা লাভ করি। আর লাভ করি বলে যখন যার যার লাইফ স্টাইলের উপর মৌলিক চাহিদা পূরণ করে কিছু সঞ্চয় করা হয়। তখন বলতে পারি আমার টাকা বেচা কেনাটা লাভজনক হয়েছে।

এই টাকা বেচাকেনায় একটি পরিবার বছরে ৬০০ এর বেশী পন্য লেনদেন করে, কমবেশী ২৫০ টা মোকামে যায়, গড়ে ১৫০০ বার এই লেনদেন করে। তাহলে এতকিছু করার পরও আপনারা নিজেকে কাঁচা মনে করছেন। কেন করছেন? সেটার কারণ আছে। কারণ আপনি ব্যবসায় একসাথে কয়েক হাজার টাকা বিনিয়োগ করবেন আর এটা আপনার টুথপেস্টের ৩৫ টাকা বিনিয়োগের মামলা আর ব্যবসায় বিনিয়োগ এক কথা নয়।

আর সেজন্যই আজকের এই আয়োজন

 লক্ষ্য করুন-
ই পত্রিকাও একটা পত্রিকা। পার্থক্য শুধু মাধ্যম।একটি পত্রিকা অফিসে যা যা দরকার ই পত্রিকা অফিসেও তাই হয়। পার্থক্য হলো ই পত্রিকার জন্য প্রেসে যেতে হয়না সেটা অনলাইনে যায়। পার্থক্যটা শুধু প্রকাশ মাধ্যমে।
ই কমার্স মোটেও ট্রাডিশনাল ব্যবসায়ের বাইরের কিছু নয়। প্রথাগত ব্যবসায় যা যা দরকার ই কমার্সের ক্ষেত্রেও সেসব প্রযোজ্য। আপনাকে পন্য ক্রয় করতে হবে, কিছু স্টক রাখতে হতে পারে, প্রচার প্রচারণা চালাতে হবে, ওয়েবসাইটে পন্য প্রদমর্শণ করতে হবে, কাস্টমারের সাথে যোগাযোগ ও সম্পর্ক রক্ষা করতে হবে। পার্থক্যটা শুধু আপনাকে অনলাইনে পেমেন্ট নিতে হবে, আর কুরিয়ারে পন্য সরবরাহ করতে হবে।

তাহলে আসুন আগে ব্যবসায় সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক
ব্যবসায়ের প্রথম কথা- ব্যবসায় এবং ব্যবসায়ী দুটো আলাদা সত্বা। আপনি নিজে একজন ব্যক্তি আর আপনার ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বা ই ইকমার্স সেটা আরেকটা ব্যক্তিসত্তা। এখন আসুন যদি আমি ধরে নেই আপনার ই কমার্স শপ এর নাম শাপলা.কম।
প্রথম ব্যবসায় কিন্তু আপনার সাথে শাপলা.কম এর। কারণ আপনি শাপলা.কম কে একটা পুঁজি ও সার্ভিস দিবেন এই শর্তে যে শাপলা.কম প্রথমত আপনার পুঁজি ফেরত দেবে, দ্বিতীয়ত আপনার বেতন বা মূলধনের সূদ দেবে এবং তৃতীয়ত আপনাকে লাভও দেবে। যদিও আপনি নিজেই শাপলা.কম এর মালিক। তথাপি আপনার হিসেবের খাতা আর শাপলা.কমের হিসেবের খাতা কিন্তু আলাদা। আপনার খাতায় আপনি কার সাথে কতটাকা লেনদেন করছেন সেটা লেখা থাকে। লেখা থাকে আপনার দোকানের কাজে আপনি কতটাকা দিচ্ছেন সেটাও। আবার দোকানের খাতায় তার বিভিন্ন লেনদেন থাকে মালিক বা পাওণাদার হিসেবে লেখা থাকে আপনার সাথে দোকানের লেনদেনটাও। আপনি আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের একজন পাওনাদার কারণ আপনি প্রতিষ্ঠানকে বিনিয়োগ স্বরুপ অর্থ দিয়েছেণ।
আরেকটা ব্যবসায় হলো শাপলা ডটকমের সাথে ক্রেতা সাধারনের। এখন আপনি দুটো ব্যবসায় সামলাতে হবে। আমরা কিন্তু প্রতিদিন একটা ব্যবসায় সামলাই যেটা আগে উল্লেখ করেছি। আমাদের দৈনিন্দিন প্রয়োজনে লেনেদেনে খাতিরে যে টাকা বিক্রি করে বেড়াই সেটা। সেই সাথে এই দুটো ব্যবসায়ের দেখার ব্যাপার আছে।
আবার যেহেতু আপনার সাথে শাপলা ডট কমের বা আপনার ই শপের একটা ব্যবসায় চলছে সেহেতু আপনাকে সব সময় হিসেব করতে হবে আপনি শাপলা ডটকমকে কত টাকা দিয়েছেন বা বিনিয়োগ করেছেন আর শাপলা ডটকম আপনাকে কতটাকা ফেরত দিচ্ছে বা দিবে।

কিন্তু তার আগে আপনাকে ব্যবসায়ের প্রাথমিক কিছু ব্যাপার জানা দরকার।
প্রথমত অন্যসব কাজের মতো ব্যবসায়ে ক্ষেত্রেও তিনটা জিনিস প্রযোজ্য। আপনি কি করছেন? কিভাবে করছেন? আর কেন করছেন? এই তিনটা বিষয় আপনার কাছে পরিষ্কার হওয়া উচিত। আরো সহজ করে বললে আপনি কি বেচবেন, কিভাবে বেচবেন এবং কেন বেচবেন? এই তিনটা প্রশ্ন এবং সিদ্ধান্ত আপনার স্বচ্ছ থাকতে হবে।

কি বেচবেন: হ্যাঁ আপনি যে পন্যটি বেচবেন সেটা নিয়ে আপনার আদ্যপ্রান্ত জানা থাকা চাই। এটি কোথায় পাওয়া যায়, কারা উৎপাদন করে, কোন ষ্পট থেকে আনতে হয়, পরিবহন ও প্যাকিং প্রসেস কি? লাভের হার কেমন? বাজারে চাহিদা কেমন? এর বিকল্প ও সম্পুরক পন্য কি কি? আর এ পণ্যটিই আর কোন কোন প্রতিষ্ঠান কি কি পলিসিতে বাজারে বিক্রি করছে।

কেন বেচবেন?
হ্যা আপনি নিজেকে প্রশ্ন করে জেনে নিতে পারেন। আপনি কেন বেচবেন? সেটা যেন এমন না হয় শুধু পন্যটি সম্পর্কে আপনি খুব ভালো বোঝোন সেজন্য, সেটা যেন শুধু এমন না হয় পন্যটি বাজারে চাহিদা আছে সেজন্য, সেটা যেন শুধু এমন না হয় এতে ভালো লাভ থাকে অথবা এর ভবিষ্যৎ ভালো সেজন্য। বরং এই সবগুলো ব্যাপার যেন পন্য বা সেবাটির সাথে যুক্ত থাকে। এতে যতো ইতিবাচক বিষয় থাকবে আপনার কাজ তত সহজ হবে।

কিভাবে বেচবেন:

এখানে অবশ্যই বিশাল একটি পক্রিয়া জড়িত। প্রথমত আপনি ভোক্তাসাধারণকে জানাতে হবে যে আপনার কাছে পন্যটি আছে। দ্বিতীয়ত পন্যের ফিচার বা গুনাগুনও আপনি ভোক্তা সাধারণকে অবগত করতে হবে। আর সবচে গুরুত্বপূর্ন বিষয় হলো আপনাকে কাস্টমারের কাছে সঠিক ধারণা দিতে হবে যে, এ পন্য কেন অন্য কারো কাছ থেকে না কিনে আপনার কাছ থেকে কিনবে? আপনি হয়তো কোয়ালিটিতে অন্যদের চেয়ে সেরা হবেন, নয়তো দামে, অথবা পন্যের সার্ভিস নিরাপত্তায়, অথবা সবদিক থেকে। তা না হলে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে আপনার টিকে থাকা কঠিন হবে বৈকি।

তারপর আপনার প্রচারণা দেখে যদি কোন ব্যক্তি আগ্রহী হয় তাকে কনভিন্স করে পন্যটি বিক্রি করা আপনার আসল চ্যালেঞ্জ। দক্ষ মার্কেটারদের বৈশিষ্ট্য হলো তাদের কাছে ক্লায়েন্ট একটি পন্য নিতে আসে তাহলে তাদের প্রেজেন্টশোনে ক্রেতা এতটাই সন্তুষ্ট হয় যে আরো দুটো পন্য অর্ডার করে যায়।
তারপর আসছে বিক্রয়োত্তর সেবা: মনে রাখবেন একজন ক্রেতা আপনার পন্যটিই শুধু কেনে না, কেনে সার্ভিসটাও। একজন মানুষ একটা টুথব্রাশ কেনার পর তিনি আশা করেন তিনি এটা ৬মাস ব্যবহার করতে পারেবন। এটা পন্যেও ৬ মাসের সার্ভিস। এমনকি এজকন মানুষ একটা জুস কেনার পর তিনি আশা করেন এটা তাকে ব্যাপক তুষ্টি ও পুষ্টি দেবে। এটাও একটা সার্ভিস। যদি অন্যথা হয় তাহলে আপনার ব্যবসার জন্য সেটা অশনি সংকেত। মনে রাখবেন বিক্রয়োত্তর সেবা দু‘রকম হয় । একটা হচ্ছে একজন আপনার কাছ থেকে একটা সিডি প্লেয়ার নিলো আর আপনি মেরামত বা রিপে¬স এর ওয়ারেন্টি গ্যারন্টি দিলেন। আরেকটা হলো আপনি প্রোডাক্টসটা বিক্রির সময় সকল প্রকার মানের নিশ্চয়তা দিলেন এবং সেটা বাস্তবে পরিনত হলো কাস্টমারের পন্যটি ব্যবহারে বা ব্যবহার করে কোন সমস্যা হলো না। এটাও এক ধরনের বিক্রয় পরবর্তী সেবা যদিও প্রচলিত অর্থে এটাকে বিক্রয় পরবর্তী সেবা বলেনা, কিন্তু আপনাকে পন্য উৎপাদন বিক্রি বা ডেলিভারীর সময় এই টেনশানটা নিতে হয় যে পন্যটি সঠিক সার্ভিসটা দেবেতো?

আর ই কমার্স এর ক্ষেত্রে বাড়তি কয়েকটি বিষয়তো অবশ্যই খেয়াল করবেন, ১: পন্যের প্যাকিং, ২: ডেলিভারী সিসটেম, ৩: ইজি পেমেন্ট। এই তিনটি জিনিস পন্য ও কাস্টমার ফ্রেন্ডলী হওয়াটা জরুরী।

এখন আপনি কি বেচবেন? কেন বেচবেন এবং কিভাবে বেচবেন এ বিষয়গুলো অবগত হলেন। এসব বিষয় আবার স্থান কাল পাত্র ভেদে পরিস্থিতির পরিবর্তন ঘটাতে পারে। সেজন্য আমার দৃষ্টিতে আপনি আরো তিনটি পয়েন্ট অবশ্যই এড করে নেবেন সেগুলো হলো আপনি কখন বেচবেন? কোথায় বেচবেন? এবং কার কাছে বেচবেন?। এগুলো ই কমার্সের অপরিহার্য বিবেচ্য বিষয়? এবং এগুলো অবশ্যই আপনাকে ব্যবসায় শুরু করার আগেই জেনে বুঝে ঠিক করে নিতে হবে।
কখন বেচবেন: কিছু পন্য আছে সিজনাল কিন্তু মানুষের চাহিদা সবসময় থাকে। আবার পন্য আছে পন্যটি সবসময় পাওয়া গেলেও তা মানুষ সবসময় কেনেনা। সূতরাং সময়ের ব্যাপারটা আপনি ভুলতে পারেন না।
কোথায় বেচবেন: এবার আপনি হয়তো এককথায় উত্তর দেবেন যে ‘‘অনলাইনে’’। কিন্তু আপনি জানেন যে অনলাইন ভার্চুয়াল জগতে এখান থেকে হয়তো কাস্টমার পন্যটি পছন্দ করে কিন্তু আপনাকে শেষপর্যন্ত ফিজিক্যালী পন্যটি পৌঁছে দিতে হয়। তাই অবশ্যই কুরিযার সেবার শর্ত ও ব্যপ্তি সম্পর্কে জেনে নেবেন। জেনে নেবেন কাস্টমারের অবস্থানটা কারণ এটা আপনার জানা দরকার যে আপনার সার্ভিস এরিয়ার মধ্যে তিনি রয়েছেন কিনা?

কার কাছে বেচবেন:

আরেকটা অতিগুরুত্বপূর্ন বিষয় হচ্চে টার্গেট কাস্টমার মানে আপনার পন্য বা সেবাটি কাদের জন্য। যারা ২/৪ মাস ধরে ই কমার্স নিয়ে জানার চেষ্টা করছেন তারা হয়তো বিষয়টা ইতোমধ্যে জেনে থাকবেন। এবিষয়টা আপনার প্রতিটি ধাপে প্রয়োজন হবে। আপনি কোন পক্রিয়ায় প্রচারণা চালাবেন আপনার ব্রান্ডিং স্টাইল কি হবে এটা নির্ভর করছে আপনার টাগেট কাস্টমারের উপর।

এছড়া ইউজার ফ্রেন্ডলি ওয়েব ডিজাইন আকষর্নীয় ছবি, ফোনলাইন, বিভিন্ন ধরনের পেমেন্ট অপশন এগুলো থাকার ব্যাপারটা আপনারা হয়তো জানেন বাকীটা ইতোমধ্যে জেনে যাবেন।

Comments

comments

About The Author



Freelance Consultant, Writer and speaker . Jahangir Alam Shovon has been in Bangladeshi Business sector as a consultant, He has written near about 500 articles on e-commerce, tourism, folklore, social and economical development. He has finished his journey on foot from tetulia to teknaf in 46 days. Mr Shovon is social activist and trainer.

No Comments

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *