original_Best-Corporate-Cyber-Security-Practice

আবুল খায়ের

বর্তমান সময়ে খুব জনপ্রিয় একটি ব্যাবসা ক্ষেত্র এবং মার্কেটপ্লেস হচ্ছে ই-কমার্স। এবং ই-কমার্সের আরেকটি শাখা ফেইসবুক কমার্স বা এফ কমার্স। ই-কমার্স ব্যাবসাটি সম্পূর্নরূপে অনলাইন নির্ভর হওয়ায় (লেনদেন, অর্ডার, এবং বিপননের অন্যান্য বিষয়াবলি) সব চেয়ে ঝুকিপূর্ন সেক্টরও এটা। ইদানিং কিছু অসাধু, সাইবার অপরাধীরা তাদের প্রতারনার একটি প্লাটফর্ম হিসেবে বেছে নিয়েছে ই-কমার্স সেক্টরকে। এই প্লাটফর্মে তারা তাদের নানান ধরনের অপরাধ কর্ম পরিচালনা করছে। ভুয়া অর্ডার, পেমেন্ট প্রতারনা সহ হরেক রকমের প্রতারনার অভিযোগ পাওয়া গেছে সম্প্রতি সময়ে উদ্যোক্তা এবং ক্রেতা উভয় পক্ষ থেকেই। তবে এই দিক থেকে ক্রেতাদের চাইতে উদ্যোক্তারাই সব চেয়ে বেশি প্রতারনার শিকার হচ্ছেন।

ইতোমধ্যেই ই-ক্যাবের একাধিক সদস্য পতিষ্ঠানের সঙ্গে অভিনব প্রতারনার ঘটনা ঘটে গেছে। পেমেন্ট প্রতারনার পর এবার এই ক্ষেত্রটি হ্যাকারদের হুমকির মুখে এসে দাঁড়িয়েছে। হ্যাকার চক্র ই-কমার্স উদ্যোক্তার ফেইসবুক আইডি এবং পেজ হ্যাক করে, পরবর্তীতে তা ফেরত দেওয়ার শর্তে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে এবং বার বার উদ্যোক্তার সঙ্গে প্রতারনা করে যাচ্ছে এরকম ঘটনা ঘটে গেছে একাধিক ই-কমার্স প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কয়েক মাসের ব্যাবধানে।
এ ক্ষেত্রে হ্যাকার রা খুব সাধারন একটি পন্থা অবলম্বন করছে যা অনেকের মাথায়ই আসে না। প্রথমে উদ্যোক্তার যে নম্বরটি দিয়ে তার ফেইসবুক আইডি ভেরিফাই করা আছে সে নম্বরটি অবৈধ উপায়ে মোবাইল ফোন অপারেটরের কাছ থেকে তুলে নিয়ে সেটি ব্যাবহার করে উদ্যোক্তার ইমেইল আইডি এবং ফেইসবুক একাউন্ট হ্যাক করছে। এরপর ফেইসবুক পেজের এক্সসেস নিজেদের নিয়ন্ত্রনে এনে উদ্যোক্তাকে বিভিন্নভাবে যোগাযোগ করে একাউন্ট এবং পেজ ফিরিয়ে দেওয়ার নাম করে মোটা অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে এবং তাদের এই প্রতারনার ধারা অব্যাহত রাখছে।

এধরনের ঘটনা যে কারো সঙ্গেই ঘটতে পারে। এই চক্রগুলো বিশেষ বিশেষ প্রতিষ্ঠানকে টার্গেট করে তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। কাজেই এ ধরনের প্রতারনা থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখার জন্য উদ্যোক্তাদের আগে থেকেই সচেতন হওয়া উচিত। বর্তমান সময়ে একজন ই-কমার্স ব্যাবসায়ীর জন্য তার ওয়েবসাইট এবং ফেইসবুক পেজই তার ব্যাবসার মূল রুজি রুটি। কাজেই এই দুইটা সিস্টেমের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা প্রত্যোক ই-কমার্স উদ্যোক্তার জন্যই অতীব জরুরি। এজন্যই প্রথমে আলোচনা করা দরকার মনে করছি ফেইসবুক পেজের নিরাপত্তা নিশ্চিত বিষয়ে। তো চলুন জেনে নেই একটি ই-কমার্স সাইটের ফেইসবুক পেজ বা এফ-কমার্স পেজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কিছু প্রাথমিক ট্রিকস সম্পর্কে।

facebook-security

১. আপনার ই-কমার্স সাইটের ফেইসবুক পেজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রথমেই পেজের অ্যাডমিন একাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা জরুরি।
২. একাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে একাউন্টের উদ্যোক্তার সব ধরনের প্রাইভেসি অনলি মি করে রাখাটা খুব কার্যকরি।
৩. ফেইসবুক একাউন্টটি যে নম্বর দিয়ে ভেরিফাই করা আছে সে নম্বরটি অবস্যই গোপন রাখা উচিত এবং এমন একটা নমর ব্যাবহার করা উচিত যেটা শুধু আপনি ব্যাতীত অন্য কেউ জানেনা।
৪. একাউন্টে তিন-চার জন ট্রাস্টেড পার্সোন যুক্ত করে রাখতে পারেন, অতিরিক্ত নিরাপত্তার জন্য।
৫. মোবাইল লগ ইন ভেরিফিকেশন এক্টিভ করে রাখতে পারেন, এই অপশনটিও আপনার একাউন্টকে অতিরিক্ত সুরক্ষা প্রদান করতে সহায়তা করতে পারে।
৬. সম্ভব হলে দুই সপ্তাহে বা মাসে একবার করে ফেইসবুক একাউন্টের পাসওয়ার্ড পরিবর্তন করুন।
৭. আপনার যাবতীয় কন্টাক্ট ইনফর্মেশন প্রোফাইল থেকে হাইড করে রাখুন।
৮. পেজে আপনি ব্যাতীত অন্য কাউকে সরাসরি এডমিন করবেন না, এডিটর, মডারেটর, এডভার্টাইজার বা এনালিস্ট করতে পারেন প্রয়োজন মত।
৯. বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠানকে/ব্যাক্তিকে এডভার্টাইজার করবেন।
১০. পেজের যাবতীয় তথ্য/পেজ আইডি নিরাপদ কোথাও নোট করে রাখুন।

এবার আসা যাক ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কিছু জরুরি আলোচনায়। একটি ই-কমার্স ওয়েবসাইট একটি ই-কমার্স ব্যাবসার মূল প্রতিপাদ্য বস্তু। কেননা ওয়েবসাইটই ব্যাবসার যাবতীয় তথ্য, ক্রেতা, পন্য, বিক্রয়, লেনদেন সহ সব ধরনের তথ্য ধারন করে। একটা ব্যাংক একাউন্ট যতটা সুরক্ষিত রাখা উচিত, একজন ই-কমার্স ব্যাবসায়ীর জন্য তার ওয়েবসাইটটিও ঠিক ততটাই সুরক্ষিত রাখা উচিত। অনেক ক্ষেত্রে তার চাইতেও বেশি। অনেক ওয়েব সাইটে পেমেন্ট গেটওয়ে সংযুক্ত করা রয়েছে, সুতরাং ত্রুটিপুর্ন ই-কমার্স ওয়েবসাইট ঝুকির মুখে সবচেয়ে বেশি। সাইটের নিরাপত্তায় কোনো দিক থেকেই যেন ঘাটতি না থাকে তা একজন ই-কনার্স ব্যাবসায়িকে অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে। ই-কমার্স ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা বৃদ্ধির জন্য নিন্মোক্ত বিষয়গুলো অনুসরন করে চলার চেষ্টা করলে ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা বহুলাংশে নিশ্চিত করা সম্ভব।

SecureSiteS

১. একটি ই-কমার্স সাইটের প্রথম এবং প্রধান হুমকি হচ্ছে হোস্টিং সার্ভার। সাধারন ওয়েবসাইটের ক্ষেত্রে শেয়ার্ড হোস্টিং ব্যাবহার গ্রহনযোগ্য হলেও ই-কমার্স সাইটের ক্ষেত্রে শেয়ার্ড হোস্টিং কোনো ক্রমেই ব্যাবহার না করাটাই শ্রেয়। সে ক্ষেত্রে খরচ কিছুটা বেশি হলেও ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার (ভিপিএস) অথবা ডেডিকেটেড সার্ভারে তা হোস্ট করা ঝুকিহীন। তাও যদি সম্ভব না হয় তাহলে অন্তত রিসেলার হোস্টিং ব্যাবহার করা উচিত ই-কমার্স সাইট হোস্ট করার জন্য। শেয়ার্ড হোস্টিং এ অনেক ধরনের ত্রুটি রয়েছে এবং হ্যাক হওয়ার ক্ষেত্রেও খুব ঝুঁকিপূর্ন।
২. ওয়েবসাইট যে সিএমএসেই করা হোক না কেন তার লগ ইন ডিরেক্টরি একটু আলাদা রাখার চেস্টা করুন যেন অন্য কেউ তা খুজে না পায়।
৩. সুপার এডমিন একাউন্টটির ইউজারনেমটা একটু ব্যাতিক্রম রাখুন যাতে যে কেউ সেটা অনুমান না করতে পারে।
৪. সাইট ম্যানেজমেন্টে একাধিক ওয়েব মাস্টার থেকে থাকলে সবার সাথে আপনার সুপার এডমিন একাউন্ট শেয়ার না করে প্রত্যোককে আলাদা আলাদা একাউন্ট করে দিন, এবং তাদের দরকারের চাইতে বেশি এক্সসেস দেওয়া থেকে বিরত থাকুন।
৫. সিপ্যানেল এবং অন্যান্য জায়গার পাসওয়ার্ড গুলো এমন ভাবে সেট করুন যেন তা অন্য কারও বুঝতে কষ্টসাধ্য কাজ হয়। বড় হাতের অক্ষর, ছোট হাতের অক্ষর, নম্বর, সাংকেতিক চিহ্নের সঙ্গমিশ্রনে তা সেট করা সবচেয়ে বেশি নিরাপদ। নিজের নাম, মোবাইলনম্বর, প্রিয়জনের নাম যা অনেকেই অনুমান করতে পারে এগুলো ব্যাবহার করা থেকে বিরত থাকুন।
৬. ওয়েব সাইটের কিছু গুরুত্বপূর্ন তথ্য (ডোমেইন কন্ট্রোল, সিপ্যানেল) কারও সাথে শেয়ার করবেন না। তবে আপনি যদি অন্য কোনো ওয়েব ডেভলপার দিয়ে আপনার সাইটের কাজ করান সেক্ষেত্রে ভিন্ন কথা।
৭. ওয়েবসাইটের ডাটাবেজের রেগুলার ব্যাক আপ নিয়ে রাখুন, সম্ভব হলে প্রতিদিনেরটা প্রতি দিন।
৮. সিকিউরড ট্রান্সফার প্রোটোকল (https://) যদি পারেন ব্যাবহার করার চেষ্টা করবেন, কারন একটি ই-কমার্স সাইটে পেমেন্ট গেটওয়ের মত খুব গুরুত্বপূর্ন একটি মডিউলের সংযোজন রয়েছে।
৯. এস এস এল সার্টিফিকেট যত দ্রুত সম্ভব হয় নিয়ে নিন।
১০. কপিরাইট করে নিন আপনার ওয়েব সাইটের যত দ্রুত সম্ভব হবে।
১১. সাইট তৈরীর আগে কোনো সিএমএস, প্লগ ইন, স্ক্রিপ্ট বা অন্য কোনো কিছুতে ভালনার‍্যাবিলিটি আছে কিনা তা যাচাই করে নিন। এজন্য অভিজ্ঞদের পরামর্শ নিতে পারেন।

নিরাপত্তা সংক্রান্ত আরও তথ্য পর্যায় ক্রমে তুলে ধরা হবে ই-ক্যাবের বিভিন্ন আলোচনাতে। কাজেই নিরাপদে-নিশ্চিন্তে ব্যাবসা পরচালনার জন্য ই-ক্যাবের সঙ্গেই থাকুন। চোখ রাখুন ই-ক্যাব ব্লগ এবং নিউজে। যে কোনো সমস্যার জন্য রয়েছে ই-ক্যাব ফেইসবুক গ্রুপ এবং স্কাইপি আড্ডা। আরও রয়েছে ই-ক্যাব তথ্য কেন্দ্র।
ধৈর্য ধরে পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। ভালো থাকুন সুস্থ থাকুন, ইক্যাবের সঙ্গেই থাকুন।

 

8,028 total views, 3 views today

Comments

comments