এক নজরে ই-ক্যাবের মানবসেবা . কম

এক নজরে মানবসেবা . কম

আজ করোনা নামক মহামারীর ভয়াল থাবা পড়েছে বাংলাদেশে। কোনো জাতি, ধর্ম, পেশা, এলাকা, বর্ণ কিংবা রক্তের গ্রুপ নয়। সকল বাংলাদেশী আমরা জীবন নিয়ে শংকিত। সেই শংকা থেকে একরকম বাধ্য হয়ে আমরা নিজেদেরকে গৃহে অন্তরীন করেছি। এতে আমাদের বাইরের জীবনে স্থবিরতা এসেছে ঠিকই কিন্তু গৃহবন্ধী জীবনে খাদ্য, ঔষধ, শিশুদের খাবার, ঘরভাড়া এবং পরিচ্ছন্নতা সামগ্রী এসবের যোগান দিতে হচ্ছে।

সামর্থবানরা হয়তো তাদের সঞ্চয় থেকে সংকুলান করছে নয়তো তারা তাদের জীবনের নিয়মিত ব্যয়কে সংক্ষেপ করে এই পরিস্থিতির সাথে সমন্বয় করছে। কিন্তু নিন্মবিত্ত যারা দিন এনে দিন খায় তারা পড়েছে এক গভীর সংকটে। একদিকে ঘরের বের হওয়া বারণ তাই নিত্য দিনের রুটি রুজিও বন্ধ। অন্যদিকে ঢাকা শহরে বসবাসের জন্য বাড়ী ভাড়া, প্রতিদিনের খাবার, ঘরে শিশু থাকলে তার জন্য শিশুখাদ্য, বয়স্ক বাবা-মা থাকলে তাদের জন্য জরুরী ঔষধ। এক হিমশিম খাওয়া পরিস্থিতি। যেন সামনে সমূদ্র আর পেছনে পাহাড়। কোথাও যাবার নেই। এই অবস্থায় তাদের দিকে তাকানো আমাদের ই দায়িত্ব।

এছাড়া যারা মাসে এনে মাসে খায়। নিন্মমধ্যবিত্ত বা অসহায় মধ্যবিত্তরা রয়েছে এক অবর্ণনীয় সংকটে। তারা না পারছে মাস শেষে পরিবারের জন্য কোনো অর্থ সংস্থান করতে। না পারছে লাইনে দাঁড়িয়ে ত্রান গ্রহণ করতে। হয়তো তারা অক্ষমতার লজ্জায় স্ত্রীর চোখে চোখ রেখে কথা বলতে ভুলে গেছে। হয়তো তারা সন্তানের বায়না ভোলার জন্য তাদেরকে করোনা নামক নতুন দৈত্যের গল্প শোনাচ্ছে। বৃদ্ধ মা- বাবাকে ঔষধ দিনে দিতে না পারার জন্য তাদের কাছ থেকে নিজেকে লুকানোর জায়গা খুঁজছে। আর বাড়ীওয়ালাকে তারিখের পর তারিখ দিচ্ছে। কাছের বন্ধুর কাছে টাকা ধার চাইতে ফোন দিয়ে তার কষ্টে কথা শুনে নিজের মনের কথা মনে চেপে নিচ্ছে। জীবন যেন এখানে করুনা করতেও ভুলে গেছে।  এই মানুষগুলোর জন্য ই-ক্যাবের উদ্যোগ manobsheba.com।

আমরা দেশের প্রতিটি সামর্থবান নাগরিককে অনুরোধ করবো। এই সংকটে আসুন আমরা শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখি আর মানবিক দূরত্ব দূর করি। একে অন্যের পাশে দাড়াই। আমরা যদি প্রত্যেকে একটি করে পরিবারের দায়িত্ব নিই। তাহলে এই সংকট থেকে আমরা সহজে বের হয়ে আসতে পারব। আমরা জানি আমরা  সেই ১৯৭১ সালে স্টেনগান ও ট্যাংকধারী শত্রুর বিরুদ্ধে লড়াই করে জয় চিনিয়ে এনেছি। আমাদের একতা ও আমাদের পারস্পরিক ভালবাসা আমাদের শক্তি। এই শক্তি দিয়ে আমরা যেকোনো বাঁধাকে জয় করতে পারি ইনশা-আল্লাহ। একটি পরিবারের এক সপ্তাহের জন্য ১ হাজার টাকা আর ১ মাসের জন্য ৪ হাজার টাকা দিয়ে আপনিও একটি পরিবারের দায়িত্ব নিন।

আজ দেশ জাতি কঠিন সংকটে। তাই নিজেদের অবস্থান থেকে আমাদের প্রত্যেকের কিছুনা কিছু করার আছে। তাই ১০০ টাকা কিংবা ১০০০ টাকা বড় কথা নয়। আমরা একে অন্যের পাশে দাড়িয়েছি এটাই বড় কথা। ই-ক্যাবের সদস্যরা এই তহবিলে প্রাথমিক অনুদান দিয়েছে। এখন আমরা অন্যদেরকেও আহবান জানাই এক কাতারে এসে মানুষের জন্য কাজ করতে। কে কত টাকা দিচ্ছি এটা বড় কথা নয়। আমরা একজন আরেকজরেন পাশে দাড়িয়েছি এটাই বড় কথা। এখানে চাইলে কেউ নিজের নামও গোপন রাখতে পারেন।

বলে রাখা দরকার, সবাইকে যে অর্থ দিয়ে সহযোগিতা করতে হবে তা নয়। একজন ভলানটিয়ার হিসেবেও এই প্লাটফর্মের সাথে যুক্ত হতে পারেন যে কেউ। একজন ভলানটিয়ার চাইলে তার এলাকা, তার আত্মীয় বা তার প্রতিবেশী কারও জন্য সাহায্যের পরামর্শ দিতে পারেন। চাইলে অনুদান সংগ্রহে সহযোগিতা করতে পারেন অথবা সহযোগিতা বা উপহারগুলো সেইসব মানুষদের কাছে পৌছে দেয়ার ব্যাপারেও ই-ক্যাবকে সাহায্য করতে পারেন। আর কিছু না পারেন অন্তত ফেসবুকে এই মেসেজটাতো আপনি শেয়ার করতে পারেন।

আসুন আমরা  একা একা নয়, একা একা ভাল থাকার কোনো সূত্র নেই। সেটা আজ প্রমাণ হয়েছে। তই আসুন আমরা একসাথে ভাল থাকি, একসাথে লড়াই করি, একসাথে জিতি, একসাথে ফিরে আসি আমাদের সেই হাঁসিখুশি ভরা বার মাসের তের উৎসবের জীবনে।

 

728 total views, 3 views today

Comments

comments