সাপ্লাই চেইন: ই কমার্স ব্যবসায়ীদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

সাপ্লাই চেইন এবং সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট আধুনিক ব্যবসা বাণিজ্যের অন্যতম নিয়ামক। এই কাজটি যেমন প্রতিটি ব্যবসার জন্য গুরুত্বপূর্ন তেমনি ব্যবসা ও পেশা হিসেবেও এর কদর দিন দিন বাড়ছে। ইউরোপ আমেরিকাতে আরো অনেক আগে থেকেই এবিষয়ে একাডেমীক কোর্স চালু হলেও সাম্প্রতীক সময়ে আমাদের দেশেও হচ্ছে। রয়েছে পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিপ্লোমা, এটা এক বৎসরের কোর্স। আবার শুধুমাত্র সাপ্লাই

কিভাবে প্রতারণা থেকে নিজে বাঁচবেন এবং প্রতারণা সন্দেহ থেকে নিজেকে বাঁচাবেন ?

ই কমার্স ব্যবসায় বিশ্বাসের ঘাটতি : উদ্যোক্তাদের করনীয় জাহাঙ্গীর আলম শোভন আসলে আস্থার সংকটটা আমাদের দেশে একটু বেশী। নতুন কোনো ব্যবসা দাঁড়াতে প্রচুর সময় ব্যয় হয় শুধু এই আস্থা তৈরী করার জন্য। আর এর কারণ হচ্ছে আমাদের দেশে প্রতারণা একটু বেশী হয়। কারণ আমরা নিয়ম মেনে ব্যবসা করিনা। এবং সচেতন হইনা। আমরা অবিশ্বাস করি তাও

ই-ক্যাবের ২ মাসঃ কিছু কথা

আজ ৮ জানুয়ারি ২০১৫। ঠিক ২ মাস আগে ৮ নভেম্বর তারিখে জাতীয় প্রেসক্লাবে এক প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশান অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরুর ঘোষণা সংগঠনটির সভাপতি হিসেবে আমি দেয়। ২ মাসে আমরা আশাতীত এগিয়েছি। সদস্য সংখ্যা বেড়েছে, ফেইসবুক গ্রুপে আশাতীত সাফল্য এসেছে, আমাদের ব্লগ এখন বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ই-কমার্স ব্লগ। সর্বোপরি বাংলাদেশে

ই কমার্স সম্পর্কে কয়েকটি ভুল ধারণা

ই কমার্স সম্পর্কে কয়েকটি ভুল ধারণা এক: ব্যবসা বাণিজ্য আসলে অনেক টাকা পয়সার ব্যাপার। এই ব্যবসায়ও নিশচয় অনেক টাকা লাগে। আমার তো এতো টাকা নেই। ব্যবসা কিভাবে করবো। উত্তর: ১. ব্যবসা বাণিজ্য করতে অনেক টাকা লাগে, কিন্তু কম টাকায়তো মানুষ ব্যবসা করেছে। কেয়া কসমেটিক্স এর মালিক খালেক সাহেব মুরগী বিক্রি দিয়ে শুরু করেছিলেন। আজাদ প্রোডাকসের

ই-ক্যাব এর ই-কমার্স সেবা কেন্দ্র এবং ২০১৫ সাল ‘ই-কমার্স বর্ষ’

প্রায় দেড় দশক ধরে বাংলাদেশে ই-কমার্স রয়েছে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে ই-কমার্সের অপরিসীম সম্ভাবনা থাকা স্বত্বেও এ খাতে উল্লেখযোগ্য বৃদ্ধি পরিলক্ষিত হয় নি। নিরবিচ্ছন্ন ইন্টারনেট সংযোগ, ই-কমার্স সংক্রান্ত আইন, অনলাইনে নিরাপদ লেনদেনের ব্যবস্থা সহ নানা সমস্যায় জর্জরিত এ সেক্টর। বর্তমান সরকার ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের ঘোষণা প্রদান করেছে। সরকারের এ রূপকল্পের সাথে একাত্মতা

ই-কমার্স ওয়েবসাইটের জন্য ব্লগ কেন অত্যাবশ্যকঃ ভিজিটর আনার টিপস

ই-কমার্স এর ভিজিটর আনার জন্য আমার পরিচিত সবাই মনে করেন যে ফেইসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া সবচেয়ে ভাল উপায়। আমি তাদের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করি। আমার মনে হয় ভিজিটর আনার জন্য সবচেয়ে ভাল উপায় হল আপনার সাইটের একটি ব্লগ থাকা। অবশ্য আমি বলছি না যে ফেইসবুকে বিজ্ঞাপণ দেবার দরকার নাই বা আপনার পেইজের লাইক বাড়ানোর জন্য চেষ্টা

পেশাদার বা প্রফেশনাল ব্লগিং

এই পর্বে এসে শিরোনামের পদ্ধতি একটু বদলে দিলাম যাতে করে শিরোনাম দেখেই একজন পাঠক এই পর্বে কি নিয়ে কি নিয়ে লেখা হল তা বুঝতে পারেন অনায়াসে। যাইহোক শিরোনাম দেখেই বুঝতে পারছেন যে এবার পেশাদার বা প্রফেশনাল ব্লগিং নিয়ে আলোচনা করবো। এ সম্পর্কে তেমন কোন সংজ্ঞা পেলাম না ইন্টারনেটে। তাই নিজের তৈরি সংজ্ঞা দিয়েই কাজ চালাতে

বিজনেস ও কর্পোরেট ব্লগিং

এ পর্বে আমি বিজনেস ও কর্পোরেট ব্লগিং নিয়ে আলোচনা করবো। যারা কষ্ট করে পড়ছেন ও কমেন্ট করছেন তাদের অসংখ্য ধন্যবাদ। কর্পোরেট ব্লগ এর সহজ সংজ্ঞা বোধহয় দেয়া যায় এভাবেঃ কর্পোরেশন বা কর্পোরেট হাউস দ্বারা পরিচালিত অথবা স্পন্সরকৃত ব্লগ যেগুলো ঐ কোম্পানির পন্য ও সেবা সম্পর্কে তথ্য তুলে ধরে এবং কোম্পানি সম্পর্কে নানা ধরনের তথ্য প্রদান

ব্লগ নেটওয়ার্ক এর যত কথা

ব্লগ নেটওয়ার্কের সংজ্ঞা খুজতে গিয়ে দুটি মনের মত পেলাম। প্রথমে উইকিপিডিয়াঃ ব্লগ নেটওয়ার্ক বলতে একাধিক ব্লগ যারা যুক্ত থাকে সেটাকে বোঝায়। এছাড়া কোন কোম্পানি যখন একাধিক ব্লগ একটি নেটওয়ার্কের অধীনে চালায় সেটাকেও ব্লগ নেটওয়ার্ক বলে। অর্থাৎ অনেকটা গ্রুপ অব কোম্পানিজের মত গ্রুপ অব ব্লগজ। (সুত্রঃ http://en.wikipedia.org/wiki/Blog_network ) পিসি ম্যাগও কাছাকাছি সংজ্ঞাই দিয়েছেঃ http://www.pcmag.com/encyclopedia/term/56587/blog-network দুটি সংজ্ঞা

পার্সোনাল ব্লগিং নিয়ে কিছু কথা

এ পর্বে আমি পার্সোনাল ব্লগিং নিয়ে আলোচনা করতে চাই। পার্সোনাল ডায়েরীর সঙ্গে পার্সোনাল ব্লগিং এর মিল আছে অনেক আর কিছুটা পার্থক্যও আছে। ডায়েরিতে মূলত আমারা প্রতিদিনের ঘটনা লিখে থাকি। পার্সোনাল ব্লগিং এর ব্যাপ্তি আরও অনেক বেশি। পার্সোনাল ব্লগিং এর সংজ্ঞা গুগোলে যেমনটি পেলামঃ অনলাইনে এক বা একাধিক ব্যক্তি তাদের প্রাত্যহিক জীবনের ঘটনা অথবা বিভিন্ন বিষয়ের