৫টি উপায়ে সেল বাড়ান আপনার বিজনেসের

2276
improve your sell

 বিক্রি করুন এমন প্রোডাক্ট যেটার সাথে আরো প্রোডাক্ট বিক্রি করা যায়

ধরেন আপনি একটা গিটার কিনলেন কিন্তু কিছুদিন পর আপনার মনে হলো আপনি সেটা আপগ্রেড করতে চান, আপনার যখন সুবিধা হবে তখন আপনি আরো দামি গিটার কিনলেন,

 

গিটার কেনা হয়ে গেলো, এরপর দেখলেন আপনার গিটারের তার কিনতে হবে, টিউনার কিনতে হবে, কেস কিনতে হবে ইত্যাদি আরো অনেক কিছু। তাই এমন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করা যায় যেটার সাথে আরো সহযোগী প্রোডাক্ট এর প্রয়োজন হয়।

 

আর একটা উদাহারন দেয়া যায় সেটা হচ্ছে ডমেইন হোস্টিং বিজনেস। একজন ক্রেতা কিন্তু একটা ডমেইন আর হোস্টিং কিনলে ই হয়ে যায় না এরপর তাকে ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে হয়, ডিজাইন হয়ে গেলে SEO এবং ইত্যাদি ইত্যাদি কাজ করার ব্যাপার থাকে। এগুলি করতে আবার গ্রাফিক ডিজাইন এর কাজ ও লাগে। তাই আপনি যদি ডোমেইন হোস্টিং বিজনেস এর সাথে সাথে এগুলি সার্ভিস রাখেন তাহলে যে আপনার কাছ থেকে ডোমেইন আর হোস্টিং নিলো সে কিন্তু আপনার অন্য সার্ভিস গুলো ও নিতে পারে।

আমাজন এ এভাবে ৩৫% ভাগ সেল হয়। ক্রেতা প্রথমে একটা প্রোডাক্ট কিনে তারপর সেটার সাথে সম্পর্কিত আরো কিছু প্রোডাক্ট।

 

অর্ডার বাতিলের পরিমান কমাতে হবে

প্রতিটা ১০০ কাস্টোমার যারা আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করেছে তার মধ্যে ৬০-৭০টা কার্ট ই কাস্টোমার বাতিল করে দেয়। যেখানে অনেক ই কমার্স বিজনেস টাকা হারাচ্ছে।

 

যেমন আপনি ৪০০ ডলার একটা প্রোডাক্ট ৪০ জন কাস্টোমারের কাছে বিক্রি করলেন এক মাসে, ৮০০০ হাজার ডলার আসছে, কিন্তু এখানে যদি আপনি বাতিল হয়ে যাওয়া কার্ট এর পরিমান কমাতে পারেন তাহলে কিন্তু লাভ আরো অনেক বেশি আসবে।

 

বেশির ভাগ ক্ষেত্রে ই দেখা যায় কাস্টোমার তাদের কার্ট বাতিল করে প্রোডাক্ট এর দামের কারনে এবং বাড়তি কিছু ফি এর কারনে, আর এক ই প্রোডাক্ট সে যদি অন্য সাইটে কম দামে পায় তাহলে সে আপনার সাইটে আর আসে না।

 

এই ক্ষেত্রে আপনাকে যেটা করতে হবে সেটা হচ্ছে কাস্টোমারদের কে ই মেইল পাঠাতে হবে, আপনার প্রোডাক্ট এর, আপনার সার্ভিস এর বিভিন্ন অফার, প্যাকেজ ইত্যাদি সম্পর্কে অবহিত করতে হবে। কি থাকতে পারে ই মেইল এ

 

  • কাস্টোমারদের মনে করান যেটা সে বাতিল করেছে সেই কার্ট এ কি কি ছিলো
  • আকর্ষণীয় হেডলাইন, চমৎকার কন্টেন্ট এবং সুন্দর ফটো দিয়ে তাদের মনোযোগ আপনার দিকে নিয়ে আসেন
  • ডিস্কাউন্ট দেন
  • এরকম বলেন যে তারা যদি এমন প্রোডাক্ট অর্ডার দেয় যেটা অনেক জনপ্রিয়, স্টক এ বেশি সময় থাকে না তারপর ও আপনি তাদের জন্য সেটা রাখবেন

সোশ্যাল মিডিয়ায় সময় কাটান

এতে কোন সন্দেহ নাই যে ই কমার্স বিজনেস এর অন্যতম প্রধান ড্রাইভার হচ্ছে ফেসবুক।  Facebook, Pinterest, Twitter, YouTube এবং Reddit এর পারফর্মেন্স সব থেকে ভালো। নির্ভর করে অবশ্যই আপনার বিজনেস এর ক্রেতা এবং প্রোডাক্ট টার্গেট এর উপর, বাংলাদেশ ভিত্তিক ক্রেতা হলে ফেসবুক ছাড়া অন্য জায়গায় খুব একটা সুবিধা পাওয়া যাবে না আবার সারা পৃথিবীতে কাজ করতে হলে সব গুলি ই কিছু না কিছু কাজে লাগবে। ফেসবুক এ অ্যাড দিয়ে SA company তাদাএর সেল ৩৭% পর্যন্ত বাড়াতে পেরেছে।

 

এফিলিয়েট এর মাধ্যমে সেল বাড়ানো

এফিলিয়েটের মাধ্যমে আপনি আপনার প্রোডাক্ট সেল করতে পারেন কারন এখানে কমিশন এর একটা ব্যাপার আছে, যে আপনার প্রোডাক্ট বিক্রয় করতে কাজ করবে তাকে আপনি একটা কমিশন দিবেন ব্যাপারটা হলো এরকম যে আপনি আপনার লাভ থেকে তাকে কিছু কমিশন দিলেন, তাতে যেটা হচ্ছে সেটা হলো আপনার প্রোডাক্ট এর ফ্রি মার্কেটিং হচ্ছে, শুধু প্রোডাক্ট না আপনার ওয়েবসাইট অথবা ফেসবুক পেজের ও।

কিছু ধাপের মাধ্যমে আপনি এফিলিয়েট করে সফলতা পেতে পারেন

  • ঠিক করেন আপনি কোথায় আপনার নেটওয়ার্ক তৈরি করবেন এবং কারা থাকবে, এটা ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে ও হতে পারে, আপনার ওয়েবসাইট এ রেজিস্ট্রেশন লিঙ্ক রাখতে পারেন
  • সেখান থেকে আপনি খুঁজে বের করবেন কারা আপনার প্রোডাক্ট সেল করে দিতে পারবে
  • আর আপনি যে কমিশন দিবেন সেটা আপনার অ্যাড এর বাজেট থেকে কম হলে ই ভালো হবে

 

ক্রিয়েটিভ হোন

শুধু গ্রাফিক ডিজাইন এ ক্রিয়েটিভিটি না, এটা অনেক জায়গায়তেই প্রয়োজন হয়, যেমন এখানে, আপনার প্রোডাক্ট এর বিস্তারিত বর্ণনা, প্রচলিত যেগুলি আছে সেগুলি না দেয়া, আকর্ষণীয় ছবি ব্যবহার করা, আরো কিছু পয়েন্ট

 

  • ইন্সটাগ্রাম এ মার্কেটিং করে দেখতে পারেন, বাংলাদেশে ভালো জনপ্রিয় হচ্ছে এটা
  • ফেসবুক এ স্টোর করা যায়, সেটা করে দেখতে পারেন, সেটা ও কাজে আসতে পারে
  • WishList থেকে আপনি প্রতি জনকে আলাদা করে ই মেইল পাঠাতে পারেন যখন আপনার সে প্রোডাক্ট টি সেল হয় অথবা কোন অফার থাকে
  • যত সম্ভব ক্লাইন্ট এর রিভিউ নেন। এটা খুব ই গুরুত্বপূর্ণ

 

আরিফুল ইসলাম

ডিজিটাল মারকেটার

 

ফেসবুক এর বুস্ট নিয়ে চমৎকার কিছু টিপস আছে নিচের লেখাটিতে পড়ে দেখতে পারেন

ফেসবুক অ্যাড, চমৎকার টিপস

বিজনেস এ যা যা করা উচিত না জানতে নিচের আর্টিকেলটি

বিজনেস এ যা যা করা উচিত না

অল্প টাকায় বিজনেস করার উপায় জানতে নিচের আর্টিকেলটি পড়তে পারেন

অল্প টাকায় ব্যাবসা করার কিছু উপায়

 

 

 

Comments

comments

About The Author


আমি আরিফুল ইসলাম, লেখালিখি করতে ভালো লাগে, জেনেসিস ব্লগ এ লিখি গ্রাফিক ডিজাইন, আউটসোর্সিং ইত্যাদি বিষয়ে। এক বছর ধরে ফেসবুক মার্কেটিং, ভিডিও মার্কেটিং নিয়ে পড়াশুনা করছি, বেশ ভালো ও লাগছে, চেষ্টা থাকবে যা জানবো সেগুলি নিয়ে লিখতে। e-Cab কে অনেক ধন্যবাদ আমাকে এখানে লেখার সুযোগ করে দেয়ার জন্য। আশা করি ভালো কিছু লেখা দিতে পারবো।