abc

২০২১-২২ সালের বাজেটে ই-কমার্সের জন্য প্রস্তাবনা ০৩

(প্রস্তাবিত বাজেট অনুসারে কিছু সুনির্দিষ্ঠ প্রস্থাব)

ই-কমার্স সেক্টরের শুরু থেকে বিগত ৬ বছর ধরে ই-কমার্স এ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) ই-কমার্স সেক্টরের উন্নয়নে কাজ করছে। বিগত বছর করোনাকালীন সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে ই-ক্যাব নিত্যপণ্য সেবা সচল রেখেছে। সরকারের সহযোগিতা নিয়ে লকডাউন এলাকায় লাখো মানুষকে ঘরে ঘরে সেবা দিয়ে করোনা সংক্রমণ রোধে ভূমিকা রেখেছে, ডিজিটাল কুরবানি হাট বাস্তবায়ন করে অনলাইনে গরু বিক্রির ক্ষেত্রে নতুন রেকর্ড তৈরী করেছে, টিসিবি’র পেয়াজ বিক্রি কার্যক্রমে সংযুক্ত হয়ে পেঁয়াজের দাম নিয়ন্ত্রণে ভূমিকা রেখেছে, মানবসেবা প্রকল্প চালু করে হাজারো বিপদগ্রস্থ মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে এবং ই-জিনিয়াস প্রকল্প বাস্তবায়ন করে গৃহে থাকা শিক্ষার্থীদের সহশিক্ষা কার্যক্রমের মাধ্যমে মেধা বিকাশের সুযোগ করে দিয়েছে। বর্তমানে প্রতিদিন ২ লাখ পরিবারকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছে এই খাতের কর্মী ও উদ্যোক্তোরা। ঐতিহাসিক কার্যসম্পাদন করে ই-ক্যাব অর্জন করেছে সরকারের ‘‘ডিজিটাল বাংলাদেশ পুরষ্কার ২০২০’’। ইতোমধ্যে ই-ক্যাব বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে মিলে ‘‘ডিজিটাল কমার্স নীতিমালা ২০২১’’ খসড়া প্রনয়ন করছে।

  • ই-কমার্স সেক্টরে বিগত বছরগুলোর তুলনায় প্রবৃদ্ধি দ্বিগুন হলেও নিত্যপণ্য ব্যতিত অন্যান্য পণ্যের ক্ষেত্রে প্রবৃদ্ধি আশানুরুপ নয়। এছাড়া এখনো কোনো প্রতিষ্ঠান লাভের মুখ দেখেনি এমনকি ব্রেক ইভেন পয়েন্টে আসতে পারেনি। তবুও প্রতিষ্ঠানগুলো ভবিষ্যতের উদ্যেশ্যে বিনিয়োগ করছে। ট্রেড লাইসেন্স অনুসারে এই খাতের উদ্যোক্তারা এখনও আইনগত স্বীকৃতিই পায়নি।
  • উল্লেখ্য ই-কমার্স সেক্টরে মাত্র ১ শতাংশ উদ্যোক্তা বড় প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলেও বাকী ৯৯ শতাংশ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা। ই-ক্যাবের সদস্য সংখ্যা মাত্র ১৫শ। বাকী কয়েকলাখ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা রয়েছে এই বাইরে। এই উদ্যোক্তাদের একটি প্রক্রিয়াতে আনার জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, এন.বি.আর এবং ই-ক্যাব কিভাবে কাজ করতে পারে তার একটি পরিকল্পনা প্রয়োজন।
  • এই অবস্থায় ২০২১-২২ সালের বাজেটে ই-কমার্স সেক্টরকে উৎস-করের আওতায় আনার যে প্রস্তাব করা হয়েছে তা বাস্তবসম্মত নয়। কারণ এই প্রস্তাব বাস্তবায়িত হলে এই খাত সমস্যার মুখোমুখী হবে। একদিকে প্রথাগত দোকানসমূহের সাথে অনলাইন পন্যের দামের পার্থক্য দেখা দেবে অন্যদিকে যারা এখনো ব্যবসায়িক নিবন্ধন করেনি তারা নিবন্ধন এর আওতায় আসবেনা আবার যারা নিবন্ধন করেছে তারা পেশাদারভাবে ব্যবসা না করে ফেসবুক নির্ভর অনিবন্ধিত ব্যবসার দিকে ঝুঁকতে পারে। আমরা চাই ধীরে সব উদ্যোক্তারাই এখাতে নিয়মিত হয়ে উঠুক, ট্রেড লাইসেন্স বা নিবন্ধনের আওতায় আসুক এবং ফর্মাল সেক্টরের সাথে সংযুক্ত হোক।
  • এতদসংক্রান্ত কারণে যেকোনো বিধি, নীতি ও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন: যেমন, ট্রেড লাইসেন্স ক্যাটাগরিতে ই-কমার্স সংযুক্ত করা দরকার এবং ই-কমার্স আইন ও নীতিমালা প্রণয়নের যথাযথ ব্যবস্থা নিয়ে এই উদ্যোক্তাদের জন্য অন্যান্য সুযোগসুবিধা নিশ্চিত করা প্রয়োজন।
  • এ ব্যাপারে ই-ক্যাব নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। ই-ক্যাবের পক্ষ থেকে খসড়া এসওপি ছাড়াও ই-কমার্স আইনের প্রস্তাব করা হয়েছে। ট্রেড লাইসেন্স প্রস্তাবনা স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ে বিবেচনাধীন রয়েছে। এছাড়া এফ-কমার্স উদ্যোক্তাদের সহজ নিবন্ধনের একটি প্রস্তাবণা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের বিচেনাধীন রয়েছে।

 

ই-ক্যাব এর সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাবনা :

১. ই-কমার্স আইন, ই-কমার্স নির্দেশিকা, ট্রেড লাইসেন্স এ্যাক্ট সংশোধন, এফ-কমার্স নিবন্ধন এই প্রক্রিয়া সম্পাদনের সুবিধার্থে এই সেক্টরের উদ্যোক্তাদের প্রস্তুতির জন্য আগামী ২০২৪ সাল পর্যন্ত করের আওতামুক্ত করার প্রস্তাব করছি।

২. যেহেতু এখনও পর্যন্ত ১-২% কোম্পানী স্টার্টআপ থেকে বড় কোম্পানী হতে পেরেছে কিন্তু বাকি সবাই এখনও স্টার্টআপ হিসাবে কাজ করছে তাই করের আওতায় আনতে হলে একটি স্লাব/ভাগ প্রক্রিয়া এনে যারা বড় কোম্পানী তাদেরকে নিবন্ধিত করা যেতে পারে।

৩. ই-কমার্স খাতে রাজস্ব আদায়ের লক্ষে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ও ই-কমার্স এসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) কিভাবে কাজ করতে পারে সে বিষয়ে একটি সুনির্দিষ্ট কমিটি গঠন করে কর্ম পরিকল্পনা তৈরী করার  প্রস্তাব করা হলো ।

বর্তমানে সাধারণ ব্যবসা বা প্রচলিত দোকানের সাথে ভ্যাট ট্যাক্সের ক্ষেত্রে ই-কমার্স সেক্টরের বৈষম্যের একটি তুলনামূলক চিত্র সংযুক্ত করা হলো।

৪. বর্তমান পদ্ধতি ফেসবুকে এ্যাড দিতে গেলে দুবার ভ্যাট দিতে হচ্ছে। এতে করে প্রায় ৩০% এর বেশী ভ্যাট কাটা পড়ছে। এই প্রক্রিয়ায় বিজ্ঞাপন খরচ বেড়ে যাচ্ছে এবং পন্যের দামও বাড়ছে। তাই এখনি এই প্রক্রিয়াটি বন্ধ হওয়া উচিৎ।

*** অন্যান্য প্রস্তাবনা বাজেট পাস হওয়ার পূর্বে প্রেরিত প্রস্তাবে সংযুক্ত রয়েছে।

 

398 total views, 2 views today

Comments

comments