ডিজিটাল কুরবানি হাট

ডিএনসিসির ডিজিটাল হাট: সাধারণ ক্রেতাদের জিজ্ঞাসা

এবার অনলাইনে গরু কেনার ব্যাপারে অনেকে আগ্রহী হয়েছেন। আবার কারো মনে কিছু  প্রশ্ন রয়েছে। এগুলো সমাধান হলে তারা হয়তো সিদ্ধান্ত নেবেন। তাদের কথা বিবেচনা করে েএই লেখা তৈরী করা হয়েছে।

 

১. কিভাবে ডিএনসিসির ডিজিটাল হাট থেকে গরু কিনবেন?

উত্তর:

ডিএনসিসির ডিজিটাল হাট থেকে গরু কেনার জন্য ভিজিট করুন: www.digitalhaat.net ভিজিট করুন। এখানে আপনি গরুর জাত, দাম, ওজন এমনকি খামারের নাম অনুসারে গরু অনুসন্ধান করতে পারবেন। প্রতিটি গরুর ছবি ছাড়াও জাত, ওজন, দাঁত এর ব্যাপারে সব তথ্য রয়েছে। কিছু গরু রয়েছে ডিজিটাল স্কেলে ওজন দেয়া কিছু গরু রয়েছে ফিতার মাপে কিংবা আনুমানিক ওজন। এছাড়া বেশকিছু গরুর লাইভ স্টক সনদ রয়েছে। তা দেখেও আপনি গরু পছন্দ করতে পারেন।

-যেসব গরু এ্যাভেলবল রয়েছে সেসব গরুর আপনি সরাসরি পেমেন্ট দিয়ে কিনতে পারেন। অন্য গরুর ক্ষেত্রে আপনি প্রথমে বুক করবেন। তারপর আপনাকে জানিয়ে দেয়া হবে গরুটি আছে কিনা। কনফার্ম করার করার আপনি পেমেন্ট করতে পারবেন। পেমেন্ট করা মানে আপনার গরু কেনা হয়ে গেল। আপনি একটি ইনভয়েস পাবেন। সেখানে আপনার গরুর অন্যান্য তথ্যের সাথে কোড নাম্বারটিও থাকবে। কোড নাম্বার অনুসারে পরে আপনি গরুটি চিহ্নিত করতে পারবেন।

গরুর দাম ওজন ৪০০ কেজী ওজনের গরু প্রতিকেজীতে দাম পর্যন্ত ৩০০ থেকে ৩৭৫ টাকা। গরুর ওজন ৪০১ থেকে ৫০০ কেজী হলে কেজী প্রতি দাম পড়বে ৩৫০ থেকে ৪২৫ টাকা। এবং গরুর ওজন ৫০১ কেজীর বেশী হলে দাম পড়বে কেজীপ্রতি ৪০০ টাকা থেকে ৪৭৫ টাকা।

 

২। কিভাবে গরু ডেলিভারী হবে?

 

ঈদের ৩ দিন আগে আপনার ঠিকানায় গরু পৌঁছে দেয়া হবে। তিনটি কারণে আপনি গরু নিতে অস্বীকৃতি জানাতে পারবেন। (১) একটি গরুর স্থলে অন্যটি দেয়া হলে। (২) গরুর ওজনের পার্থক্য ১৫% এর বেশী হলে। (৩) গরুর কোনো অঙ্গ প্রত্যঙ্গ না থাকলে বা এমন কোনো রোগ থাকলে যাতে গরু কোরবানি নাযায়েয হয়।

এছাড়া আপনি যদি স্লটারিং সেবা নেন। সেক্ষেত্রে আপনার সিডিইল অনুসারে ঈদের দিন অথবা ঈদের দ্বিতীয় দিন। অথবা ঈদের তৃতীয় দিন আপনার গরু জবাই করে মাংস বাসায় ডেলিভারী দেয়া হবে। প্রতি ব্যাগে ৪ কেজী করে। এছাড়া ভূড়ি, মাথা, ফুসফুস, কলিজা পায়া এসবও প্রক্রিয়াকরণ করে আলাদা ব্যাগে ডেলিভারী দেয়া হবে। স্লটারিং সেবার জন্য চার্জ গরুর দামের ২৩%  মাত্র।

 

৩। স্লটারিং সেবা যদি গরুর দামের মাত্র ২৩% হয় তাহলে কি বেশী হয়ে যায়না?

উত্তর: আসলে কসাই সেবা, গরুকে ৩-৫ দিন রাখা খাওয়া, রাখালদের থাকা খাওয়া, গরু জবাই, কাটা, ভূড়ি পরিষ্কার, ফুড গ্রেডেড প্যাকেজিং এবং বাসায় ডেলিভারী সব মিলিয়ে এই খরচ। ক্রেতারা যখন নিজ দায়িত্বে কাজ করেন তখন তাদের চাটাই কেনা, গরু আনার জন্য লোক রাখা, দা-চুরি, কাঠেরগুড়ি কেনা, গরু রাখা, খড়কেনা ইত্যাদি সব মিলিয়ে কিন্তু খরচ ২৭% পড়ে যায়। সেদিক থেকে চিন্তা করলে ২৩% বেশী না।

 

৪। স্লটারিং হাইজে গরু রাখা হবে সেখানে একজনের গরুর সাথে আরেকজনের গরু মিলে যাবে কিনা? কিংবা গরু জবাইয়ের মাংস মিশে যেতে পারে কিনা?

উত্তর: এধরনের কোনো আশংকা নেই। কারণ প্রথমে যখন ইনভয়েস দেখে গরুটিকে স্লটারিং হাউজ গ্রহণ করবে তখন ওজন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রতিটি পশুতে ট্যাগ নাম্বার লাগানো হবে। ট্যাগ নাম্বার ও ইনভয়েস এর সাথে মালিকের তথ্য সংরক্ষণ করা হবে। গরু জবাইয়ের পর মাংস যখন প্যাকেজিং করা হবে তখন প্যাকেটের গায়ে ট্যাগ নাম্বার লিখে দেয়া হবে। পরে ঠিকানা অনুসারে তা গ্রাহকের বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে।

 

৫।  কোনো কারণে সঠিক গরু না দিলে বা গরুতে সমস্যা থাকলে বা গরুই ডেলিভারী না দিলে টাকা ফেরত পাবো কিভাবে?

উত্তর: আমরা ঈদের ৪ দিন আগে বিক্রি বন্ধ করে দেব। ৩ দিন আগে ডেলিভারী হবে। তখনি আমরা জানতে পারব কোন কোন অর্ডারে সমস্যা রয়েছে। যেসব অর্ডারে সমস্যা থাকবে আমরা সেগুলো দ্রুত সমাধান করা হবে। সূতরাং যেসব ক্ষেত্রে সমস্যা হবে সেসব ক্ষেত্রে গরু পরিবর্তন করা কিংবা টাকা ফেরত নেয়ার সময় থাকবে। এছাড়া আমাদের ডিজিটাল হাটে ৬০ জনের মতো মার্চেন্ট রয়েছে। যারা সবাই পরীক্ষিত এবং পেশাদার। এমনটা কেউ করবেন না। সকলের তথ্য যেমন আমাদের কাছে রয়েছে তেমনি তাদের সাথে আমাদের শর্তসাপেক্ষে চুক্তি করা হয়েছে। এছাড়া আমরা কিন্তু গরুর পেমেন্ট এর ২০% টাকা ডেলিভারীর পরে মার্চেন্টদের পে করব। সূতরাং এ ধরনের ভাবনার কোনো অবকাশ নেই।

সবচেয়ে বড় কথা হলো, যাতে এধরনের প্রতারণা না হয় । সেজন্য ডিজিটাল হাট নামের এই প্লাটফরম তৈরী হরা হয়েছে। নয়তো প্রত্যেকে আলাদাভাবে গরু বিক্রিতো করছেনই।

 

আরো তথ্য জানতে: ভিজিট করুন –www.digitalhaat.net, সাপোর্ট সেন্টার:  09614102030

প্রবাসী ক্রেতারা ফোন করতে পারেন: 01886888000

 

 

 

186 total views, 3 views today

Comments

comments