কিভাবে বুঝবেন যে কোন ডেলিভারী বা শিপিংএ ঝুকি আছে?

443

কিভাবে বুঝবেন যে, কোন ডেলিভারী বা শিপিংএ ঝুকি আছে?

জাহাঙ্গীর আলম শোভন

 

ডেলিভারী কোম্পানী নিয়ে সমস্যার সমাধান হতে না হতে ডেলিভারী বা শিপিং নিয়ে মহাসমস্যাগুলো শুরু হয়েছে। পন্য চুরি ছিনতাই হওয়া, ফেক অর্ডার দেয়া, ফোন গ্রহণ না করা, ফেরত দেয়া, প্যাকেট খুলে নষ্ট করা, কোনো মিথ্যা কারণ দেখিয়ে পন্য নিতে অস্বীকার করা, ডেলিভারী ম্যানের টাকা হাইজ্যাক করা, ডেলিভারী বয়কে আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় করে এসব মাঝে মধ্যে শোনা যায়। অনেকে হেসে উড়িয়ে দেন অনেকে আবার ভয়ে ভীত হয়ে কাজই বন্ধ করে দেন।

কিন্তু উচিত হলো সমস্যা সমাধানে ব্রতি হওয়া এবং সতর্ক থাকা যেমন এটা দ্বিতীয়বার না হয়। সেজন্য সর্তকতা বিষয়গুলো আমরা একটু আলোচনা করে নিই।

 

ফেক ফ্যাক্টর:

অর্ডারটি ফেক বা বিপদজনক হতে পারে, সেটা বোঝার প্রথম সুযোগ হলে এটা যদি ফেক ফেসবুক আইডি থেকে হয়ে থাকে। বিশেষ করে ছদ্মনামের কিংবা ভুল ছবির আইডিগুলো ফেক হতে পারে। তবে অনেক সময় স্বাভাবিক নামও ছবি দিয়ে ফেক আইডি থাকে। সেক্ষেত্রে হয়তো অন্যকারো ছবি ব্যবহার করে থাকে। মোবাইল নাম্বার ও ঠিকানাসহ অন্যান্য তথ্য যাচাই করে আমরা এ ধরনের ফেক অর্ডার থেকে কিছুটা হলেও নিষ্কৃতি পেতে পারি।

 

এড্রেস ফ্যাক্টর:

ঠিকানা। হাঁ অনেক সময় ঠিকানা পুরো থাকেনা। বিশেষ করে বাড়ী নাম্বার হাউজ নাম্বার এসব থাকে না। কিংবা থাকলেও সেটা কাংখিত এলাকার সাথে মিলছেনা। সেখানে হয়তো এই নম্বরের বাড়ী নেই। এসব ক্ষেত্রে ঠিকানা দেখেই চিহ্নিত করা যেতে পারে ঝুকিপূর্ণ ফরমায়েশ।

 

এরিয়া ফ্যাক্টর:

ঢাকা শহরে কিছু এলাকা রয়েছে হয়তো সারা বাংলাদেশেও এমনটা আছে যেখানে হরহামেশা খুন ঘুম ও নানা অপরাধ সংঘঠিত হয়। এসব এলাকায় ডেলিভারী পন্য নিয়ে গেলে একথা ওকথা বলে ঘোরায় তারপর ফাঁক বুঝে পন্য কিংবা টাকা নিয়ে সরে পড়ে। তাই এসব এলাকা চিহ্নিত করে খুব সাবধানে এগুলোতে পন্য ডেলিভারী দিতে হবে।

এর অর্থ এই নয়যে সে এলাকার ক্রেতারা খারাপ। আসলে সেখানে যোগাযোগ ব্যবস্থা ও আইন শৃংখলা পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে অপরাধীরা অপরাধ করার জন্য সেসব এলাকাকে বেছে নেয়।

 

 ফোন ফ্যাক্টর:

কিছু কিছু ক্ষেত্রে ফোনে কাস্টমারের আচরণ দেখে বিপদজনক কাষ্টমার চিহ্নিত করা যায়। যেমন তারকাছে পুরো ঠিকানা চাইলে দিতে গড়িমসি করলে। বার বার ঠিকানা বদল করলে। খুব ভিআইপি না হওয়া সত্বেও তাকে ফোনে পাওয়া না গেলে ধরে নেয়া যেতে পারে এতে ‘‘কুচ হ্যায়’’।

 

ম্যান ফাক্টর:

একজন অর্ডার দিয়েছে এখন চালাকি করে সে অন্য একজনের কাছে তার অর্ডার ডেলিভারী দিতে বলছে। এক্ষেত্রে হয়তোবা হতে পারে- ‘ডালমে কুচ কালা হ্যায়’। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে প্রথমে একজন মহিলা ডেলিভারী কথা বলে পরে সে বিভিন্ন সমস্যা দেখিয়ে অন্যকারোর কাছে পন্য দিতে বলে। এসব ক্ষেত্রে সতর্তভাবে আগানে উচিত। বার বার ঠিকানা পরিবর্তন মেনে নেয়া ঠিক নয়। আর পরিবর্তনটা যেন অনেক দূরে না হয় এবং কোনো রাস্তারমোড়ে বা পার্কে পন্য ডেলিভারী দেয়ার অনুরোধ না হয়। তাহলে ডেলিভারীর ক্ষেত্রে অবশ্যই সতর্ক হতে হবে।

 

বিহেবিয়ার ফ্যাক্টর

আচরণগত পরিবর্তন দেখেও অনেক সময় আপনি ভুল বা প্রতারখ কাস্টমার চিহ্নিত করতে পারেন। দেখবেন এক্ষেত্রে বার বার তারা বিরক্ত হচ্ছে এমন একটা ভাব করছে যেন সব ভুল ডেলিভালী ম্যান বা ডেলিভারী কোম্পানীর। এমনভাবে সে এপ্রোচ করবে যাতে ডেলিভারীম্যান তার ভুল স্বীকার করে এবং কাস্টমারকে খুশি করার জন্য তার কথামতো সময়ে কথামতো নতুন জায়গায় পন্য ডেলিভারী দেয়। এক্ষেত্রে সতর্ক না হলে বিপদের আশংকা আছে।

তবে অতিমিষ্টি কথা বলেও কেউ চুরি বা ছিনতাইয়ের প্লান করতে পারে।

 

প্রোডাক্টস ফ্যাক্টর

কিছু কিছু ক্ষেত্রে পন্য অনুসারে আপনি আগে থেকে সতর্ক হতে পারেন যে বিপদ হতে পারে। যেমন পন্যের দাম ১ হাজার টাকার বেশী হলে। পন্যটি সহজে বহনযোগ্য হলে এক্ষেত্রে বেশী ঝুকি থাকে। কমদামী অথবা বড়ো সাইজের পন্যের ক্ষেত্রে প্রতারকরা সাধারণতা রিস্ক নেয়না।

ভারতে এমনকি ইউরোপেও এসব প্রতারণা হয় তবে পরিমাণে কম। আপনারা সংবাদ মাধ্যম থেকে জেনেছেন যে, কিছু লোক অ্যমাজন আলীবাবা থেকে পন্য কিনে তারপর নিজের নষ্ট মোবাইলটা প্যাকে দিয়ে ভুল পন্য পেয়েছে বলে ক্ষতিপূরণ আদায় করে। যদিও এরাও একসময় ধরা পড়ে। সূতরাং প্রতারকচক্র এমন কোনো কায়দা বের করতে পারে যেটা আপনি আমি কেউ আগে থেকে জানি না।

১. নিজেরা চালাকি করে কোনো নিষিদ্ধ দ্রব্য প্যাকে দিয়ে আপনাকে ফাসানোর হুমকি দিয়ে টাকা আদায় করতে পারে।

২. ডেলিভারীম্যান কোনো অপরাধ করেছে এরকম দাবী করে তাকে আটকে রেখে পাড়ার মাস্তানরা আপনার কাছে চাঁদা চাইতে পারে।

৩. আপনার লাইসেন্স নেই, এই অজুহাত দিয়ে আপনার লোককে পুলিশে দেয়ার হুমকি দিয়ে আপনাকে ফাঁদে ফেলতে পারে।

৪. আপনার বিএসটিআই সিল নেই, ইন্ডিয়ান মাল, অবৈধ ব্যবসায় ইত্যাদি বলেও আপনাকে ফাঁসাতে পারে।

৫. পুলিশও ডেলিভারীম্যানকে আটক করে বিভিন্ন মামলা দেয়ার হুমকি দিয়ে আপনাকে সমস্যায় ফেলতে পারে। এধরনের ঘটনা ঘটেছে বলে বলছি।

 

তাই সাবধানে থাকুন। আপনার ডেলিভারী পার্সনদের সতর্ক করুন। তারা কিভাবে এধরনের পরিস্থিতি সামাল দেবে প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দিন।

Comments

comments

About The Author



Freelance Consultant, Writer and speaker . Jahangir Alam Shovon has been in Bangladeshi Business sector as a consultant, He has written near about 500 articles on e-commerce, tourism, folklore, social and economical development. He has finished his journey on foot from tetulia to teknaf in 46 days. Mr Shovon is social activist and trainer.