ই কমার্স: উদোক্তার জানা অজানা

619

img-sem-imagem
জাহাঙ্গীর আল শোভন

বাংলাদেশে ই কমার্সের ক্ষেত্রে ভালো একটা সূচনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। লক্ষ্য করা যাচ্ছে ঝরে পড়ার ব্যাপারটাও। একেতো দেশের পরিস্থিতি এবং সাপোর্ট চেইনগুলো উন্নত না হওয়ার জন্য অনেকে এখনই ব্যবসা শুরু করছেন না। আবার অনেকে এত কম জানেন যে শুরু করতে পারছেন না। আবার অনেকে এতো ভালো বোঝেন যে প্রয়োজণীয় প্রস্তুতির অবাবে শুরু করতে পারছেন না। এরই মধ্যে যারা শুরু করছেন তাদের মধ্যেও একটা অংশ ভালোভাবে শুরু করতে চান আরেকটা অংশ তা করছেন না অথবা করতে পারছেন না। যারা মজার জন্য বা প্রতারণার জন্য কাজ করছেন তারা আদতে ব্যবসায়ী বা উদ্যক্তা নন তাদেও কথা এ আলোচনার বিষয় বস্তুও নয়। আমাদের কথা হচ্ছে তাদেরকে নিয়ে যারা ই কমার্স করেছেন, করবেন, করছেন তাদের জন্য। প্রতিটি কাজের ক্ষেত্রে তিন পর্যায়ে জ্ঞান দরকার পড়ে।
০১. যা একেবারেন না জানলেই নয়। ০২. যা হয়তো আপনাকে জানতে হবে, নাহলে জানা কাউকে সাথে নিতে হবে। ০৩. যা জানা জরুরী নয়, তবে জানলে ভালো। ০৩. উচ্চতর জ্ঞান। এখন আমরা দেখবো একজন ই কমার্স উদোক্তার কোন পর্যায়ে কোন জিনিসগুলো কি পরিমাণ জানা দরকার। যদিও আমার অন্যান্য লেখায় বিষয়টি এসেছে তথাপি আমার কাছে মনে হয়েছে। ঠিক এই সূত্রে জানাে প্রয়োজনীয় বিষয়গুলো আলোচনা হওয়া দরকার।
প্রথমত: যা একেবারেন না জানলেই নয়:
এই ধারণাগুলো নিয়ে ব্যবসা শুরু করুন।
০১. ইংরেজী জ্ঞান: দৈনিন্দন জীবনে যতটুকু ইংরেজী জানা দরকার তা জানা থাকতে হবে। যতটা জানলে পরে ইন্টানেটের কাজগুলো করা যায়, ব্রাউজ, ব্লগ, ফেইসবুকিং ইত্যাদি করার জন্য প্রয়োজণীয় ইংরেজী জ্ঞান। এবং আপনি যে ব্যবসাটি করবেন বা যে পন্যটি বেচবেন তার সাথে জড়িত ইংরেজী নলেজ আপনার থাকা উচিৎ। থাকা উচিৎ ততটা ইংলিশ ভান্ডার যতটা হলে আপনি অনলঅইনে কেনাবেচা করতে পারবেন। আপনার ওয়েবসাইইটটর নিরাপত্তা ও খটিনাটি বিষয় সম্পর্কে বুঝতে পারবেন। দেশের ব্যবসা বার্ণিজ্য সেক্টরে পরিচিত ইংরেজী পরিভাষাগুলোও আপনার জ্ঞানে থাকতে হবে।
০২. আইটি নলেজ: ভালো ডোমেইন হোস্টিং কারা দেয়? কোন প্লাটফরম এর কি কি সুবিধা। আপনি কি ধরনের কাজ করবেন। তার জন্য কোন টেকনোলজি দরকার। কিকি সুবিধা ফিচার সার্ভিস থাকবে। তা আয়ত্বে রাখুন।
০৩. ব্যবসায়িক জ্ঞান: দেশের ব্যবসায়িক ধারা, গতি বিধি, কি ধরনের ব্যবসার সুযোগ আছে, সরকারী নিয়ম কানুন কি? ব্যবসা বাণিজ্যের ভবিষ্যত কি? কোন ধরনের পন্যের ই কমার্স চাহিদা কেমন রয়েছে। ই কমার্সকে গ্রহণ করার ব্যাপাওে জনগনের মানষিকতা কেমন। ই কমার্স রিলেটেড, সাপ্লাই ওঢেলিবারি, পেমেন্টমেথড ইত্যাদি কাঠামোগুলো সম্পর্কে সঠিকভাবে জানা থাকা চাই। যদি আগে থেকে জেনে না থাকেন। আজ থেকেই খোজ খরব নেয়া শুরু করেন। আপানি নিজেই টাইম ফ্রেম ঠিক করুন, আপনি কতোদিনর মধ্যে এসবের আপটে ইনফরমেশন জেনে রাখবেন।
০৪. রিলেটেড আইডিয়া: এবার আসুন আপনি যে পন্যটি বাজারে বিক্রি করবেন তার সম্পর্কে আপনার বিস্তারিত জানা থাকা চাই। পন্যটি কোথায় কিভাবে কারা উৎপাদন করেন। পন্যটি কোথায় কোন সময়ে কি দামে পাওয়া যায়। পন্যটি আনার কি মাধ্যমে আছে, কত সময় লাগে, সেগুলোর খরচ ও প্রসিডিওর কি? বাজাওে এ ধরনের পন্য অন্য কোন কোম্পানী বিক্রি করে তাদের দোষ গুন কি?
০৫. বাজার জ্ঞান: একটি পন্য বাজারে ছাড়ার জন্য আপনাকে জানতে হবে? বাজারে এ চাহিদা কেমন? বিকল্প পন্য কি? কত টাকা লাভ হয়। কোন কোন কোম্পানী কোন পলিসি নিয়ে কাজ করছে। সারা বাছর বাজার একরকম থাকে নাকি উঠানামা করে। কোনো বিশেষ পরিস্থতির কারনে এর বিক্রি, চাহিদা, বা সরবরাহ বাড়ে বা কমে কিনা? লোকসানের সম্ভাবনা আছে কিনা থাকলে তা কিভাওে অত্রিম করা যায়?
০৬. ব্যবসায়িক পলিসি: ব্যবসায়িক পলিসি ঠিক করার মতো ধারণা আপনার অতি জরুরী। যেমন আপনি কত টাকা লাভ করবেন? কাদের মাঝে বিক্রি করবেন? দামকে অগ্রাধিকার দেবেন তা মানকে? কিভাবে প্রচার প্রসার বাড়াবেন? ঝুঁকি কমানোর জন্য আপনি কি কি পদক্ষেপ নেবেন।
৭. অন্যান্য: আপনার পন্যের প্যাকিং কি হবে। নাম কি হবে। ডিজাইন কি হবে। পন্যটি আকষনীয় করার জন্য কি রংএর প্যাকেট থিম ডিজাইন ব্যবহার করবেন।

এর পরের অংশ নতুন উদ্যোক্তার জন্য নয়

দ্বিতীয়ত: . যা হয়তো আপনাকে জানতে হবে, নাহলে জানা কাউকে সাথে নিতে হবে।

বব্যসায়ী হিসেবে আপনি দাড়িয়ে গেছেন। সব মোটামোটি চলছে তখন এগুলো খেয়াল করুন।

০১. ইংরেজী জ্ঞান: ব্যবসায়িক আলাপ চারিতা, চিঠি পত্র, প্রফোজাল ইত্যাদি বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই ইংরেজীতে হয়। এ য্যোগ্যতাটা আপনার ব্যবসার পরিধি বাড়ার সাথে সাথে প্রয়োজন হবে। ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে আলাপচারিতা পত্রযোগাযোগ বা ই মেইল আদান প্রদানের কিছু নিজস্ব স্টাইল ও শব্দভান্ডার রয়েছে সেগুলো আপনার বা আপনার পার্টনারের বা আপনার ম্যানেজারের জানা থাকা চাই।
০২. আইটি নলেজ: ওয়েবসাইট বানাতে না জানলেও এই প্রাথমিক ধারণা, প্রকারভেদ, প্লাটপরম, ভাষা, ফরম্যাট, বাজারে প্রচলিত টেকনোলজি, কোথায় ভালো সুবিধা, ডোসেইন, হোস্টিং, নিরাপত্তা, ভিজিটর আনা এসব ব্যাপারে আপনার ধারণা থাকা উচিৎ। ইন্টারনেট, সামাজিক যোগাযোগ, এবং ই কমার্স সাইটগুলোর ব্যাপাওে আপনার ভালো জেনে রাখা প্রয়োজন।
০৩. ব্যবসায়িক জ্ঞান: পেমেন্ট গেটওয়ে, বাংলাদেশ ব্যাংকের পলিসি, প্রচলিত কোম্পানী আইন, ইত্যাদি সম্পর্কে ধারণা রাখুন। ব্যবসায়িক লাভ লোকসান হিসাব, দেশের ব্যবসায়িক আইন, বিভিন্ন ব্যবসায়িক সমিতি, গ্রুপ সম্পর্কে জেনে রাখুন। বৈদেশিক বাণিজ্য সম্পর্কে খোজখবর রাখুন।
০৪. রিলেটেড আইডিয়া: এবার আসুন আপনি যে পন্যটি বাজারে বিক্রি করেন তার ভবিষ্যত ও অতীত সম্পর্কে ধারণা নিন। ভবিষ্যত এর পরিপূরক কোনো পন্য বাজারেআসছে কিনা খবর রাখুন। অন্য দেশের বাজারে এর বিকল্প কোনো পন্য এসেছে কিনা খবর রাখুন।
০৫. বাজার জ্ঞান: বাজার অর্থণীতি বিষয়ক পত্রিকা রাখুন। আইটি বিষয়ক পত্রিকা রাখুন। বাজারে বিশ্লেষনে পত্রিকায় ও সমীকরণে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত বের হয় তার খবর রাখুন এবং এসবের টেকনিক্যাল দিকগুলো বুঝতে চেস্টা করেন।
০৬. ব্যবসায়িক পলিসি: আগামী কয়েকবছর ব্যবসায়ের পলিসি ঠিক করার মতো তথ্য উপাত্ত এবং ধারণা নিয়ে রাখুন। এবং পলিসিতে প্রয়োজণীয় পরিবর্তন পরিবর্ধণ এর সুযোগ রাখুন। আপনি যদি বিজনেস ইনভেন্টরী সফটওয়ার ব্যবহার করেন তাহলে খেয়াল রাখবেন ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন করার অপশনের ব্যাপারে সর্তক থাকুন।
৭. অন্যান্য: তথ্যপ্রযক্তিগত বিষয়গুলো যেগুলো আপনার ব্যবসায়ের সাথে সর্ম্পকিত সে ধরনের তথ্য ও জ্ঞানের ব্যাপারে ও যতটা সম্ভব আপডেট থাকুন

তৃতীয়ত: উচ্চতর জ্ঞান

এগুলো নিয়ে ভাববেন না। এগুলো তখনি প্রয়োজন হবে যখন আপনি প্রতিষ্ঠিত হবেন।
০১. ইংরেজী জ্ঞান: এটা যদি এ পর্যায়ের হয় আপনি ইংরেজদের মতোই ইংরেজী বলতে পারেন তাহলে বিদেশীদেও সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক সৃস্টিতে সহায়ক হবে।
০২. আইটি নলেজ: আপনার ই কমার্স সাইটের যাবতীয় খুটিনাটি জানা থাকলে। এ ব্যাপারে আপনি একাই একশ হয়ে থাকবেন।
০৩. ব্যবসায়িক জ্ঞান: ব্যবসায়িক জ্ঞানই মূলত আপনার অত্যাবশ্যকীয় জ্ঞান। এখানে যত বেশী জানবেন তত বেশী কাজে লাগবে।
০৪. রিলেটেড আইডিয়া: এক্ষেত্রে শুধু রিলেটেড ধারণা নয় বরং আপনি আপনার গন্ডির বাইরের বিষয় জেনে রাখলে তা আপনার কাজে লাগবে।
০৫. বাজার জ্ঞান: বাজারের ভবিষ্যত যারা যত ভালো বুঝতে পারে। তারা তত ভালো ব্যবসায়ী।
০৬. ব্যবসায়িক পলিসি: ইতিবাচক, দেশের জন্য কল্যাণ করার কথা আপনার পলিসিতে রাখুন। কারণ আপনি এখন একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী।
৭. অন্যান্য: ভবিষ্যত বংশধরদের কথা ভাবুন। তাদের জন্য কিছু গাইডলাইন রেখে যান।

Comments

comments

About The Author



Freelance Consultant, Writer and speaker . Jahangir Alam Shovon has been in Bangladeshi Business sector as a consultant, He has written near about 500 articles on e-commerce, tourism, folklore, social and economical development. He has finished his journey on foot from tetulia to teknaf in 46 days. Mr Shovon is social activist and trainer.

No Comments

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *