আপনি কি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় করতে চান ? তাহলে কি ভাবে ?

690

শুরু করার আগে একটি বিষয় পরিষ্কার করে নিতে চাই।

সহজে টাকা উপার্জন করা যায় এটা আমি বিশ্বাস করি না এবং এই আর্টিকেলটিতে এমন কোন যাদুকরী কৌশল নিয়ে আলোচনা করা হবে না,যা আপনাকে রাতারাতি ধনী করে দিবে । তার পরও যদি আপনি সহজে টাকা উপার্জন করতে চান তাহলে এই আর্টিকেল টি আপনার জন্য নয় ।

আসুন দেখে নেওয়া যাক মূলত কোন বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করা হবেঃ

  •  অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি এবং এর বিভিন্নতা
  •  অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হিসেবে কাজ করার উপকারিতা কি
  •  এক জন সফল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হওয়ার জন্য কিছু পরামর্শ এবং ভাল কিছু অনুশীলন

তাহলে আপনি কি সত্যিকার অর্থে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে টাকা উপার্জন করতে চান ? হতে পারে হ্যাঁ অথবা না । আপনি অবশ্যই অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর মাধ্যমে সফল হতে পারবেন । আপনি সফল হবেন না ব্যর্থ হবেন এটি নির্ভর করবে আপনার প্রতিজ্ঞা,অভিজ্ঞতা, সাইট ট্রাফিক ইত্যদির মাধ্যমে ।

0001

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কি ?

উইকিপিডিয়া এর তথ্য মতে, “Affiliate marketing is a marketing practice in which a business rewards one or more affiliates for each visitor or customer brought about by the affiliate’s marketing efforts”

সহজ ভাবে বলা যায়, অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হলো এমন একটি বিষয় যার মাধ্যমে প্রথমত আপনি কারো বা কোনো প্রতিষ্ঠানের পণ্য বা সেবা প্রমোট করবেন। এখন কোনো ভিজিটর যদি আপনার অ্যাফিলিয়েট লিংকের মাধ্যমে ঐ পণ্য বা সেবা কিনে থাকেন, তাহলে আপনি একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ কমিশন পাবেন।
আর এই কমিশন আপনাকে দিবে আপনার মার্চেন্ট অর্থাৎ আপনি যার পণ্য বিক্রি করছেন তিনি ।

মূলত, আপনি এক জন প্রচারক হিসেবে লাভবান হবেন,যখন আপনি সাহায্য করবেন একটি ব্যবসার পণ্য এবং তাদের সেবা প্রচারণার ক্ষেত্রে । উদাহরণ স্বরূপ,যদি আপনি কোন অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামের মার্কেটার হিসেবে নিয়োগকৃত হন,তাহলে আপনি কমিশন পাবেন তখন,যখন আপনি আপনার সাইট থেকে ভিজিটর পাঠাবেন তাদের সাইটে পণ্য কেনার জন্য এবং ক্রেতা সেই পণ্যটি কিনবে ।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং হচ্ছে একটি খুব দ্রুত এবং কম খরচে (কিন্তু সহজ নয় ) অনলাইনে টাকা উপার্জনের মাধ্যম । যেহেতু আপনাকে কোন পণ্য তৈরি করতে হচ্ছে না, শুধু আপনাকে যা করতে হবে তা হল,সম্পর্ক স্থাপন ক্রেতার সাথে বিক্রেতার ।আর আপনি কমিশন পাবেন আপনার মাধ্যমে যে পণ্য বিক্রি হয়েছে সেই পণ্যের ।

কিভাবে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করা হয় ?

যখন আপনি একটি অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামের কোন পণ্য নির্বাচন করবেন বিক্রির জন্য, বিক্রেতা আপনাকে একটি unique affiliate কোড দিবে, যেটি আপনি ব্যবহার করতে পারবেন ট্রাফিক এবং টার্গেট সাইট টির ক্ষেত্রে । বেশির ভাগ অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে  আপনাকে দিবে তৈরিকৃত টেক্সট লিংক,ব্যানার এবং ফর্ম সমূহ,যেখানে আপনাকে আপনার নিজস্ব কোডটি বসাতে হবে এবং আপনার ওয়েব সাইটের ঠিকানা দিতে হবে,যার মাধ্যমে আপনি ট্রাফিক করবেন ।আগ্রহী ক্রেতারা আপনার সাইটে দেওয়া লিংক এ যখন ক্লিক করবে তখন স্বয়ংকৃয় ভাবে তারা পণ্যের সাইটে চলে যাবে এবং তারা যদি সেই পণ্য কেনে অথবা ভিজিট করে,যেটার আপনি অ্যাফিলিয়েট করেছেন,তাহলে আপনি কমিশন পাবেন । বিক্রেতা আপনাকে পর্যবেক্ষণ করবে তাদের দেওয়া আইডির মাধ্যমে অথবা স্বয়ংকৃয় softwares এর মাধ্যমে,যেই softwares তারা ব্যবহার করে ।আপনি কোন সময় কি করেছেন,কখন ভিজিটরা ভিজিট করেছেন,কত কমিশন পেয়েছেন ইত্যাদি তারা দেখতে পাবে ।

কমিশনের জন্য আপনাকে সব সময় পণ্য বিক্রি করতে হবে না, কারন বিভিন্ন রকম অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রাম আছে যা আপনাকে বিভিন্ন ভাবে কমিশন দিবে । চলুন দেখে নেওয়া যাক আমরা কোন কোন উপায়ে কমিশন পেতে পারিঃ

  • Pay per Sale: এই প্রোগ্রামে বিক্রেতা আপনাকে কমিশন প্রদান করবে যখন কোন পণ্য আপনার মাধ্যমে বিক্রি হবে ।
  • Pay per Click: এই প্রোগ্রামে আপনি কমিশন পাবেন ক্রেতা বা ভিজিটর যখন আপনার অ্যাফিলিয়েট সাইট থেকে মার্চেন্ট সাইটে ভিজিট করবে, এখানে পণ্য বিক্রি হতে পারে বা না-ও হতে পারে । শুধু মাত্র ভিজিটর ভিজিট করলেই আপনি কমিশন পাবেন ।
  • Pay per Lead: এই পদ্ধতিতে ও আপনি কমিশন পাবেন । যখন ক্রেতা আপনার সাইট থেকে তাদের সাইটে গিয়ে তাদের দেওয়া Contact form পূরণ করবে ।

কেন অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হবেন ?

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং কে বিশ্বের সবচেয়ে গতিশীল ক্রমবর্ধমান এবং সর্বোত্তম অনলাইন মার্কেটিং টেকনিক হিসেবে বিবেচনা করা হয় অনলাইনে আয়ের ক্ষেত্রে ।
আচ্ছা তাহলে ব্যাখ্যা করেই বলিঃ

  • Cost effective: অনলাইন মার্কেটিং অনেক কম খরচের কারণ এতে মার্কেটারের কোন উৎপাদন খরচ,মান নিয়ন্ত্রণ খরচ নেই এর সব কিছু বিক্রেতা করে থাকেন ।মার্কেটার এর কোন প্রকার ব্যবসায়িক স্থান এর প্রয়োজন হয় না এবং কোন কর্মচারী নিয়োগ দিতে হয় না ।

 

  •  Global Market: সাধারণ মার্কেটিং এর মাধ্যমে শুধু মাত্র কিছু নির্দিষ্ট এলাকায় মার্কেটিং করা হয় । কিন্তু আপনি অনলাইন মার্কেটিং এর মাধ্যমে সারা বিশ্বে মার্কেটিং করতে পারবেন ।
  • No Fee: অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে যুক্ত হতে আপনাকে কোন প্রকার টাকা প্রদান করতে হয় না ।
  • No Storage No Shipping: আপনি চিন্তা মুক্ত থাকবেন পণ্যটির ব্যাপারে।কারণ, পণ্যটি গুদামজাত করা,প্যাকেটজাত করা নিয়ে আপনাকে কোন চিন্তা করতে হবেনা । এর সব কিছু বিক্রেতা করে থাকেন ।
  • No customer support: আপনাকে কোন প্রকার customer support দিতে হবে না এবং কোন চুক্তিতেও আপনাকে অংশ নিতে হয় না । গ্রাহকের সকল অভিযোগ এর সাপোর্ট বিক্রেতা দিয়ে থাকে আপনার পক্ষ হয়ে ।
  •  Passive income: একটি স্বাভাবিক চাকুরিতে আপনি যত সময় কাজ করবেন আপনি তত সময় এর থেকে একটি আয় পাবেন । আপনার মার্কেটিং দক্ষতার উপর ভিত্তি করে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং আপনাকে ক্রমাগত আয়ের সুযোগ করে দিতে পারে । এর জন্য আপনাকে সব সময় কম্পিউটারের সামনে বসে থাকতে হবে এমনটি নয়।
  • Work from home: অনেক টাকা আয় করতে চাইলে চিন্তার কোন কিছু নেই । প্রতি দিন একটু একটু কাজ করে আপনি অনেক কিছু পাবেন। এই কাজ গুলো আপনি বাড়িতে বসেই অনায়াসে করতে পারবেন ।

0002

এবার দেখা যাক এক জন সফল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হওয়ার জন্য কি কি করতে হবে, আপনি নিচের লেখাটিকে পরামর্শ হিসেবে নিতে পারেন 

আমরা উপরের আলোচনা থেকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হওয়ার সুবিধা জানলাম, এখন সকল সুবিধা সম্পর্কে জানার পর যদি আপনি মনে করেন যে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার হয়ে আপনি রাতারাতি ধনী হয়ে যাবেন তাহলে আপনি ভুল করবেন । অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং অবশ্যই অনলাইনে আয় করার একটি ভাল পদ্ধতি কিন্তু এটি খুবই প্রতিযোগিতা মূলক । অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এ সফল হওয়ার জন্য আপনাকে মার্কেটের প্রয়োজনীয়তা, আপনি কি ভাবে পণ্যটি Promote করবেন, কোন কাজ গুলো করবেন, কোন কাজ গুলো করতে পারবেন না ইত্যাদি সম্পর্কে ভাল ধারণা থাকতে হবে ।

আমার অভিজ্ঞতার আলোকে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এ সফল হবার জন্য আমি কিছু Tricks নিয়ে আলোচনা করব, যা সফল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা করে থাকেন ।

১. Only Choose a Handful or Good Product:

বেশির ভাগ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটাররা প্রথম যে ভুলটি করে থাকে তা হল, তারা অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামের অনেক পণ্য নির্বাচন করে এবং সব পণ্য গুলো Promote করে থাকে । আর সব পণ্য গুলো এক সাথে Promote করলে কোনটি সঠিক ভাবে করা যায় না । আপনি একটি পণ্য কে অ্যাফিলিয়েট করতে চাইলে ঐ পণ্যটির মার্কেটের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে জানতে হবে এবং পণ্যটি সঠিক ভাবে আপনার সাইটে উপস্থাপন করতে হবে ।

0003

২. Use Several Traffic Sources to Promote Products

অনেক অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার শুধু মাত্র তাদের সাইটে বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকেন । বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে পণ্যটিকে Promote করার কোন ভুল নেই, কিন্তু আপনার পণ্যটি Promote করার জন্য আপনি সুন্দর ভাবে কিছু ভাল Traffic sources ব্যবহার করতে পারেন । Targeted Traffic আপনি যত Sales page এ দিতে পারবেন আপনার ততই সম্ভাবনা বেড়ে যাবে বেশি আয়ের । Sales page এর Targeted Traffic পাওয়ার জন্য আপনি Google Adwords ব্যবহার করতে পারেন । আপনার Adwords account এর জন্য আপনি একটি সাধারণ ও সুন্দর বিজ্ঞাপন তৈরি করে সেটি ব্যবহার করবেন আপনার অ্যাফিলিয়েট লিংক এর মাধ্যমে আপনার Targeted page এ । আমি নিশ্চিত যে আপনি উপায় টি পেয়ে গেছেন,কিন্তু আপনাকে খেয়াল রাখতে হবে এতে আপনার campaign খরচ এবং আপনার প্রফিট এর দিকে ।

0004

৩. Test, Measure and Track Your Affiliate Campaign

এটা খুব ভাল ধারণা যে, আপনি যখন বিভিন্ন পণ্য Promote করার জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করবেন তখন আপনি খুঁজে পাবেন কোন কৌশলটি কাজ করছে আর কোনটি কাজ করছে না । আপনার campaign এর বিভিন্ন কৌশল যাচাই করুন এবং সব চেয়ে ভাল কৌশলটি আপনি ব্যবহার করুন campaign এর জন্য । আপনার campaign এর বিভিন্ন পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে আপনি ব্যাপক লাভবান হতে পারেন ।আপনি নিশ্চিত হন আপনার সাইটে বিজ্ঞাপন,ব্যানার গুলির সম্পর্কে এগুলি সহজে ভিজিটরের চোখে পড়ছে কি না । Sales page এ কিছু কিছু জায়গা আছে যে গুলিতে ভিজিটর সহজে দেখতে পাবে সে জায়গা গুলিতে আপনার বিজ্ঞাপন রাখুন ।

৪. Research the Demand of the Product

আপনি কম চাহিদা সম্পন্ন পণ্য যদি বিক্রি করতে চান এবং এর জন্য অনেক কষ্ট করেন,তার পরও যদি ভাল বিক্রি না হয় তাহলে এতে আপনার কিছু করার নেই । এটা ভাল হবে যদি আপনি সময় নিয়ে গ্রাহকের চাহিদা সম্পন্ন পণ্য খুঁজে বের করেন । এর পর যদি পণ্য সম্পর্কে সমস্যা হয় তাহলে গ্রাহকদের কাছ থেকে আপনি মতামত নিতে পারেন ।

0005

৫. Stay Current with New Methods and Techniques

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং খুবই প্রতিযোগিতা মূলক মার্কেটিং এবং প্রতিযোগিরা এখানে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন কৌশল নিয়ে হাজির হয় । নতুন নতুন কৌশল এবং market trends গুলো ভালো ভাবে ব্যবহার না করলে আপনি ব্যর্থ হবেন ।

৬. Choose the Right Merchant

যখন আপনি আপনার নির্বাচিত পণ্যটি কে Promote করবেন মনে রাখবেন সেই সাথে আপনি তাদের company টি কেও Promote করছেন,তাই এই কাজটি আপনাকে বিচক্ষণতার সাথেই করতে হবে । আপনি চাবেন না আপনার ভিজিটর পণ্যটি কিনতে এসে তারা অখুশি হয়ে আপনার সাইট থেকে চলে যাক । যদি তারা চলে যান তাহলে কি আপনি মনে করেন যে তারা আবার আপনার সাইটে ফিরে আসবে এবং আপনাকে অনুসরণ করবে ? আর এটা যদি ঘটে তাহলে আপনি যা অনেক দিন ধরে অর্জন করেছিলেন তা একেবারেই ধ্বংস হয়ে যাবে !! সচরাচর আপনি তাদের পণ্য Promote করবেন যেই সাইট বা কোম্পানি তাদের সর্বোচ্চ গ্রাহক সেবা এবং চাহিদা পূরণ করার প্রতিশ্রুতি দেয় ।

0006

৭. Use Helpful Tools

যদি আপনি সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন যে আপনি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করবেন তাহলে আপনি খুঁজে বের করুন সেই সব Helpful Tools যা আপনাকে অনেক দক্ষ করে তুলবে । আপনি চেষ্টা করলেই এরকম অনেক Helpful Tools পেয়ে যাবেন । যদি আপনি একটি WordPress powered site ব্যবহার করেন তাহলে এর সাথে আপনি আপনার অ্যাফিলিয়েট লিংকটি অর্ন্তভূক্ত করুন ।

আপনি সব কাজ ভাল ভাবে সম্পন্ন করার পর এটা ভাববেন না যে আপনার সাইটে যে সব ভিজিটর আসবে তারা সবাই আপনার পণ্যটি কিনবে !! আপনি যদি আপনার সাইটে অনেক অ্যাফিলিয়েট লিংক দিয়ে ভাবেন যে এর মাধ্যমে অনেক ভিজিটর আসবে এবং তারা সবাই পণ্য কিনবে তাহলে আপনি ভুল করবেন । এর জন্য আপনার ভাল ভাবে পরিকল্পনা করা দরকার । অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং একটি ব্যবসা,এখানে আপনার সফল হওয়ার অনেক সুযোগ রয়েছে শুধু দরকার আপনার সঠিক পরিকল্পনা ।
আমি নিশ্চিত আমি সকল বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করতে পারিনি,আমি চেষ্টা করেছি আপনাকে ভাল ধারনা দিতে !! তার পর যদি আপনার কিছু জানার অথবা কোন তথ্য দেওয়ার থাকে সে গুলি কমেন্টে লিখুন । ফেসবুকে আমাকে ফলো করুন।

এই পোস্টটি লিখেছেনঃ মমিনুল ইসলাম

Maminul Islam

 

Comments

comments

No Comments

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *